গৌরনদী সংবাদ

গৌরনদীতে বিএনপির ২৭০ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

গৌরনদীতে বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের ২৭০ নেতাকর্মীকে আসামি করে গৌরনদী মডেল থানায় বিস্ফোরক আইনে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে উপজেলা আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক শাওড়া এলাকার মাওলানা নুরুল হক তালুকদার বাদী হয়ে একটি ও নলচিড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পিঙ্গলাকাঠি গ্রামের কাজী আ. সাত্তার বাবুল বাদী হয়ে অপর বিস্ফোরক মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় বলা হয়, আসামিরা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ওপর বোমা হামলা চালিয়ে অসংখ্য নেতাকর্মীকে আহত করেছে। ঘটনাস্থল থেকে বিস্ফোরিত বোমার আংশিক আলামত ও অবিস্ফোরিত ৯টি বোমা উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ।

আওয়ামী লীগ নেতা মাওলানা নুরুল হক তালুকদারের দায়ের করা মামলায় উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মো. বদিউজ্জামান মিন্টু, পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি মিজানুর রহমান মুকুল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক হান্নান শরীফ, পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম ফকির, উপজেলা বিএনপির সাবেক ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক শামীম হাওলাদার, বরিশাল উত্তর জেলা যুবদলের সভাপতি মো. মাহফুজ মোল্লা, উপজেলা যুবদলের সভাপতি শরীফ স্বপনসহ ২৬ নেতার নামোল্লেখসহ পৌর বিএনপির অজ্ঞাতনামা ৯০ নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে।

কাজী আ. সাত্তার বাবুলের দায়ের করা মামলায় উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আবু বকর গাজী, সরকারি গৌরনদী কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি যুবদলনেতা আনোয়ার হোসেন বাদল, সাবেক জিএস ফুয়াদ হোসেন এ্যানি, নলচিড়া ১নং ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ হোসেন, নলচিড়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মো. জামাল ফকির, সাধারণ সম্পাদক মো. হারুন সিকদারসহ ২৪ নেতার নামোল্লেখ করে ইউনিয়ন বিএনপির ১৩০ নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে।

মাওলানা নুরুল হক তালুকদার এজাহারে উল্লেখ করেন, ‘গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পরে গৌরনদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মো. হারিছুর রহমানের বাড়িতে সভা শেষ করে বিভিন্নভাগে ভাগ হয়ে আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মী বাড়িতে রওনা হয়। পথিমধ্যে রাত পৌনে ৯টার দিকে উত্তর পালরদী গ্রামে বিএনপি নেতা বদিউজ্জামানের বাড়ির সামনে পৌঁছলে ওতপেতে থাকা আসামিরা আমাদের জীবন বিপন্ন করতে ৫/৭টি বোমা হামলা চালায়।’

একইভাবে কাজী আ. সাত্তার এজাহারে উল্লেখ করেন, ওইদিন রাত পৌনে ১০টার দিকে পিংলাকাঠী এলাকার আসামিরা হামলার ঘটনা ঘটায়।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, শুক্রবার সকালে ৯ যুবক ও রাতে ২ যুবক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে বলেন, আমরা আহত হয়ে এসেছি, আমাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। রেজিস্টারে নাম তোলার পরে তারা চলে যান।

গৌরনদী মডেল থানার চলতি দায়িত্বে থাকা পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মাহাবুবুর রহমান বলেন, উত্তর পালরদীর ঘটনায় মাওলানা নুরুল হক তালুকদার ও পিঙ্গলাকাঠী এলাকায় ঘটনায় আ. সাত্তার কাজী বাদী হয়ে বিস্ফোরক আইনে পৃথক দুটি মামলা করেছেন। দুটি স্পট থেকে বিস্ফোরিত বোমার আংশিক আলামাত ও অবিস্ফোরিত ৯টি বোমা উদ্ধার করা হয়েছে।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...