গৌরনদী সংবাদ

বিএনপিতে ফেরা স্বপনকে ঠেকাতে চায় আ.লীগ

দক্ষিণাঞ্চলের প্রবেশদ্বার গৌরনদী ও আগৈলঝাড়া উপজেলা নিয়ে বরিশাল-১ আসন গঠিত। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আসনটি নিজেদের দখলে রাখতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এরই মধ্যে মাঠে কাজ শুরু করে দিয়েছে। ২০০৮ সালের নির্বাচনপরবর্তী বিএনপির দুই উপজেলার নেতাকর্মীরা তিন ভাগে বিভক্ত রয়েছেন। তবে সম্প্রতি সংস্কারবাদী হিসেবে পরিচিত জহির উদ্দিন স্বপনকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিএনপিতে ফিরিয়ে নেওয়ায় দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে চাঙ্গাভাব দেখা যাচ্ছে। কিন্তু স্বপনকে ঠেকিয়ে আসনটি ধরে রাখতে চায় আওয়ামী লীগ।

বিএনপির দলীয় কোন্দল বর্তমানে চরম আকার ধারণ করেছে। তবে বিভক্ত বিএনপিকে ঐক্যবদ্ধ করে যোগ্য প্রার্থী মনোনীত করতে পারলে আসনটিতে তুমুল ভোটযুদ্ধ হবে বলে মনে করেন স্থানীয় বিএনপি নেতাকর্মীরা। বসে নেই মহাজোটের শরিক জাতীয় পার্টিও (এরশাদ)। এককভাবে নির্বাচনে অংশ নিলে বরিশাল-১ আসনে প্রার্থী দেবে দলটি। সে ক্ষেত্রে প্রার্থীও চূড়ান্ত করে রাখা হয়েছে।

আসনটিতে বর্তমানে ভোটারসংখ্যা ২ লাখ ৫৭ হাজার ১৫৫। নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন দলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে আলাপকালে জানা যায়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাগ্নে আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ ১৯৯৬ সালের সংসদ নির্বাচনে এ আসন থেকে বিজয়ী হয়ে সংসদের চিফ হুইপ হন। ২০০১ সালের নির্বাচনে হাসানাত বিএনপি প্রার্থী তৎকালীন কেন্দ্রীয় তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক জহির উদ্দিন স্বপনের কাছে পরাজিত হন এবং বরিশাল ত্যাগ করেন।

দীর্ঘ ৮ বছর পর ২০০৯ সালে তিনি বরিশালে ফেরেন এবং পরে ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি নির্বাচিত হন আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ।
মাঝে ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের জেলা সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট তালুকদার মো. ইউনুস এমপি নির্বাচিত হন বিএনপির ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সোবহানকে পরাজিত করে।
বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের মেয়াদে আসনটির দুই উপজেলায় ব্যাপক উন্নয়ন ও আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী হিসেবে শক্ত অবস্থানে রয়েছেন আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ।
তবে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা মনে করেন, বিএনপির জহির উদ্দিন স্বপন মনোনয়ন পেলে ভোটে তুমুল প্রতিযোগিতা হবে। তবে বিএনপি নেতাকর্মীদের অভিযোগ, স্বপনকে নিয়ে যাতে তারা জোরেশোরে মাঠে না নামতে পারেন, সে জন্য আওয়ামী লীগ দলীয় নেতাকর্মী ও পুলিশ দিয়ে তাকে এলাকায় প্রবেশে বাধা দিচ্ছে। একই সঙ্গে বিএনপির অপর মনোনয়নপ্রত্যাশীদের রাজনৈতিক মাঠে সুযোগ দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে।

গৌরনদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এইচএম জয়নাল আবেদীন বলেন, এ আসনে দলের একক প্রার্থী আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ আগামী নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়লাভ করবেন। বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দল এবং বর্তমান সরকারের দশ বছরের উন্নয়নের কারণে হাসানাত জয়লাভ করবেন বলে তিনি মন্তব্য করেন। বিএনপির একটি অংশের নেতাকর্মীদের রাজনৈতিক মাঠে ছাড় দেওয়ার কথা তিনি অস্বীকার করেন। অন্যদিকে বরিশাল-১ আসনে বিএনপি নেতাকর্মীরা বর্তমানে তিনটি গ্রুপে বিভক্ত। স্বাধীনতাপরবর্তী সব নির্বাচনে আসনটিতে জয়লাভ করে আসছে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী। ব্যতিক্রম ঘটে শুধু ২০০১ সালের নির্বাচনে। সেবার বিএনপির তৎকালীণ কেন্দ্রীয় তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক জহির উদ্দিন স্বপন আসনটিতে জয়লাভ করে।

কিন্তু ২০০৬ সালে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের মেয়াদে স্বপন কথিত সংস্কারপন্থিদের সঙ্গে হাত মেলানোর অভিযোগে ২০০৮ সালের নির্বাচনে মনোনয়নবঞ্চিত হন। ওই নির্বাচনে বিএনপির মনোয়ন পান বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সোবাহান। কিন্তু আওয়ামী লীগের ওই সময়ের সবচেয়ে দুর্বল প্রার্থী তালুকদার মো. ইউনুসের কাছে সোবহান পরাজিত হন এবং নির্বাচনপরবর্তী দানা বাধতে শুরু করে অভ্যন্তরীণ কোন্দাল, যা বর্তমানে প্রকট আকার ধারণ করেছে।
তবে সম্প্রতি জহির উদ্দিন স্বপনকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিএনপিতে ফিরিয়ে নেওয়ায় দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে চাঙ্গাভাব দেখা যাচ্ছে।

আগৈলঝাড়া উপজেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি হাফিজুর রহমান সিকদার বলেন, আওয়ামী লীগকে পরাজিত করতে জহির উদ্দিন স্বপনের বিকল্প নেই বরিশাল-১ আসনে।

এ আসনে বিএনপির মনোনয়ন লড়াইয়ে সাবেক এমপি জহির উদ্দিন স্বপন ছাড়াও মাঠে রয়েছেন কেন্দ্রীয় বিএনপির সহসাংগঠনিক সম্পাদক ও বরিশাল জেলা সাধারণ সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমান, কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সোবহান এবং অ্যাডভোকেট গাজী কামরুল ইসলাম সজল।

এ ছাড়া নির্বাচনে বিএনপি অংশ না নিলে জাতীয় পার্টি (এরশাদ) ৩০০ আসনেই প্রার্থী দেবে বলে ঘোষণা দিয়েছে। সে ক্ষেত্রে বরিশাল-১ আসনে প্রার্থীও চূড়ান্ত করেছে দলটি। এ আসনে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে সাবেক মন্ত্রী সুনীল গুপ্তের ছেলে ড. অশোক গুপ্ত রয়েছেন বলে জানিয়েছেন বরিশাল জেলা জাপা সভাপতি অধ্যাপক মহসিন-উল-ইসলাম হাবুল।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

Via
Kamrul Islam Sazal
Source
Amader Somoy

আরো পোষ্ট...