আর্কাইভ

উজিরপুরে সরকারী খাল বন্ধ করে মাছের ঘের ও পোল্ট্রি ফার্ম তৈরীর চেষ্টা

রাহাদ সুমন, বানারীপাড়া ॥  বরিশালের উজিরপুরের সাতলা ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের এক প্রভাবশালী ব্যক্তির বিরুদ্ধে জনগুরুত্বপূর্ন সরকারী খাল দখল করে মাছের ঘের ও পোল্ট্রি ফার্ম তৈরী চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনা ২৩ মে থেকে চলমান রয়েছে।

এ ব্যপারে এলাকাবাসী জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। রাজাপুর গ্রামের খ্রিষ্টানপলী­র বাসিন্দা বিভুদান বাড়ৈ, জুয়েল বিশ্বাস,টমাস বিশ্বাস,প্রিয়কুমার বৈরাগী,সুভাষ ফলিয়া,আনন্দ হালদার ও জনবিষু বাড়ৈ জানান রাজাপুর মৌজার ইউনিয়ন বোর্ড কর্তৃক সংরক্ষিত ২৩১  নং  খতিয়ানের ২৩ নং দাগের এ খালটি বাংলা ১৩৩৮ সাল থেকে নৌকা সহ সাধারনের ব্যবহারের জন্য সিকস্তি খাল হিসাবে এস,এ পর্চায় লেখা আছে।

সেই থেকে কলমার খাল নামে পরিচিত খালটি জনগন ব্যবহার করছেন। বর্তমানে ওই এলাকার মৃত প্রেম রঞ্জন অধিকারীর ছেলে বিত্তশালী   পিন্টু অধিকারী ২ কিঃ মিঃ লম্বা খালটির গোড়ায় বিশাল বাঁধ নির্মান করে খালটি বন্ধ করে নিজ দখলে নিয়ে মাছের ঘের ও পোল্ট্রি ফার্ম করে  জন দূর্ভোগ সৃষ্টি করে ব্যক্তি স্বার্থ হাসিলের পায়তারা করছেন। এছাড়া এর পূর্বে খালটির অপর প্রবেশদ্বারে একই এলাকার মাহাবুব বেপারী, কিরণ রায় ও মতি হালদার আরও ৩টি স্থায়ী বাঁধ দিয়ে খালের মধ্যে মাছের ঘের নির্মান করেছেন। খাল ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের ভেরিবাঁধের মধ্যে ৩’শ পরিবারের দেড় হাজার মানুষ, ৩ হাজার গবাদী পশু ও শতাধিক পোল্ট্রিফার্ম রয়েছে।

চলতি বর্ষা মৌসুমে খালের পানি দুই প্রান্তথেকে সঠিকভাবে যদি নদীতে ওঠানামা করতে না পারে তবে রাজাপুর গ্রামের ঐ মানুষগুলো সহ গবাদী পশু ও পোল্ট্রিফার্ম গুলো নিশ্চিতভাবে পানিতে তলিয়ে যাবে এবং স্থায়ীভাবে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হবে বলে গ্রামবাসী জানান। অভিযুক্ত পিন্টু অধিকারীর দাবী খালের একটি অংশ আদালতের মাধ্যমে ডিক্রি সূত্রে তিনি মালিক এবং সরকারী কোষাগারে খাজনা দিয়ে বৈধ ভাবেই তার বাড়ি সংলগ্ন খালের কিছু অংশ বন্ধ করে দিচ্ছেন।এব্যাপারে সাতলা ইউপি চেয়ারম্যান সোহাগ মোল্লা জানান ওই খালে বাঁধ দিতে নিষেধ করা হয়েছে। তিনি বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানাবেন বলে জানান।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন জানান অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন

Back to top button
Translate »