আর্কাইভ

আট বছরের শিশু কন্যাকে নষ্টা আখ্যায়িত ॥ এলাকা ছাড়ার নির্দেশ সমাজপতিদের ॥ মামলা দায়ের

এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে। অবশেষে ঘটনার তিনদিন পর গতকাল রবিবার থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনাটি বরিশালের গৌরনদী উপজেলার বার্থী বাজার এলাকায়।

ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের পাশ্ববর্তী গৌরনদী উপজেলার বার্থী বাজার সংলগ্ন মহাসড়কের পাশে খুপরি ঘর করে বসবাস করা ভূমিহীন আলম বেপারী জানান, গত ৭ বছর পূর্বে তিনি স্ত্রী নাছিমা বেগম ও একমাত্র কন্যা সন্তান আনোয়ারা খানমকে নিয়ে বার্থী বাজার এলাকার সড়ক ও জনপথের জমিতে জীর্নশীর্ন একটি কুড়ে ঘর নির্মান করে বসবাস শুরু করেন। গত শুক্রবার সকালে প্রতিদিনের ন্যায় তিনি দিনমজুরের ও তার স্ত্রী নাসিমা বেগম ঝিয়ের কাজ করতে যান। ওইদিন বিকেল তিনটার দিকে তার বসত ঘর সংলগ্ন বার্থী বাজারের তেলের দোকানদার উপজেলার বড়দুলালী গ্রামের এসাহাক মোল্লার পুত্র রিপন মোল্লা (১৮) তার আটবছরের কন্যা আনোয়ারা খানমকে কথা বলার জন্য দোকানে ডেকে নিয়ে যায়। এক পর্যায়ে বন্ধ দোকানের মধ্যে নিয়ে রিপন শিশুটিকে ধর্ষনের চেষ্টা চালায়। এ সময় শিশু কন্যা ডাকচিৎকার শুরু করলে বখাটে রিপন ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে ধরে খুটির সাথে আঘাত করে। এতে শিশুটি রক্তাক্ত জখম হয়। এপর্যায়ে শিশুটি কান্নাজুড়ে দিলে স্থানীয়রা শিশুটিকে উদ্ধার করে। আহত শিশুটিকে গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পথে রিপনের লোকজন বাঁধা প্রদান করে। পরবর্তীতে স্থানীয়ভাবে শিশুটিকে চিকিৎসা প্রদান করা হয়।

ভূমিহীন আলম বেপারী আরো জানায়, তিনি ও তার স্ত্রী বাড়িতে ফিরে এ ঘটনা শুনে কন্যা আনোয়ারাকে নিয়ে রাতে তারা বাজার কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ আলী ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা ও রিপনের নিকট আত্মীয় মোঃ সহিদুল ইসলাম বেপারীর কাছে বিষয়টি জানিয়ে বিচার চান। তারা বিচার না করে উল্টো তাদের শ্বাসিয়ে দেয় এবং এ ঘটনা কাউকে না জানানোর জন্য ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। খবর পেয়ে গত শনিবার বিকেলে স্থানীয় সংবাদ কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পৌঁছলে শিশু কন্যা আনোয়ারা ও তার বাবা-মা অসংখ্য লোকের সামনে এ ঘটনার বর্ননা করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বাজার কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ আলী ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ সহিদুল ইসলাম শিশুটিকে নষ্টা মেয়ে আখ্যায়িত করে আগামী তিনদিনের মধ্যে স্থান ত্যাগ করার নির্দেশ দেন। এ ব্যাপারে  বাজার কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ আলী ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ সহিদুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তারা স্থান ত্যাগের নির্দেশ প্রদানের কথা স্বীকার করে বলেন, মেয়েটি নষ্টা প্রকৃতির। বাজারের স্বার্থেই এ নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

অভিযুক্ত রিপন মোল্লার সাথে যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে তার পিতা এসাহাক মোল্লা বলেন, মেয়েটি নষ্টা, তার কোন অভিযোগে আপনাদের কান দেয়া উচিত নয়।
শিশুটির মা নাছিমা বেগম জানান, এ ঘটনায় তারা সামাজিক পরিবেশ ও মানবাধিকার সংস্থার কাছে নায্য বিচারের দাবি করেন। সংস্থার প্রনিনিধিরা গতকাল রবিবার সকালে শিশুটিকে উদ্ধার করে গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে ভর্তি করেন। বর্তমানে শিশুটি হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডাঃ লাকী পারভীনের তত্বাবধানে শিশু ওর্য়াডে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এ ঘটনার তিনদিন পর গতকাল রবিবার দুপুরে শিশু কন্যার মা নাছিমা বেগম বাদি হয়ে তিনজনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে গৌরনদী থানায় মামলা দায়ের করেছেন। গৌরনদী থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মোঃ নুরুল ইসলাম মামলা দায়ের কথা স্বীকার করে বলেন, আসামিদের গ্রেফতারের জন্য জোড় প্রচেষ্ঠা অব্যাহত রয়েছে।

আরও পড়ুন

Back to top button
Translate »