আর্কাইভ

শেবাচিম হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে স্কুল ছাত্রী রুপা

শ্রেণীর ছাত্রী জোবায়েদা আক্তার রুপা। নীল রং এর ডায়েরীতে সে লিখেছে, প্রেমিক সাইফুলের অনমনীয় আচরণে সে শরীরে আগুন লাগিয়ে আত্মহত্যার পথ বেঁছে নিয়েছে। তবে এ ব্যাপারে সে অন্য কাউকে দায়ী করেনি।

জানা গেছে, প্রায় এক বছর পূর্বে তেরচর গ্রামের মিজানুর রহমান খন্দকারের বড় কন্যা জোবায়েদা আক্তার রুপার সাথে পরিচয় হয় খেজুরতলার গাছুয়া গ্রামের মিন্টু হাওলাদারের ছেলে সাইফুল হাওলাদারের। সে থেকেই তাদের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সাইফুল প্রায়ই তার কর্মস্থল গাজীপুরের বাটার দোকান থেকে গ্রামে এসে প্রেমিকা রুপার সাথে দেখা করতো। মুলাদী মাহমুদজান পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কারিগরি শাখার ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী রুপা সাইফুলের প্রেমে পাগলপ্রায়। বিভিন্ন বাঁধা বিপত্তি এড়িয়ে সে সাইফুলের সাথে কথা বলতো।

গত ৭ অক্টোবর সাইফুল রুপাকে বিয়ের প্রস্তাবও দেয়। রুপা তাতে রাজী হয়। কিন্তু পরে সাইফুল নানা তালবাহান শুরু করে। গত ১০ নবেম্বর সাইফুল রুপাকে পালিয়ে ঢাকায় যাওয়ার জন্য বলে। ফলে প্রেমে পাগল রুপা পালিয়ে ঢাকা যাওয়ারও চেষ্টা চালায়। কিন্তু পরিবারের সদস্যদের সতর্কতায় রুপা ব্যর্থ হয়। তবে রুপার মা রহিমা বেগম সাইফুলের পরিবারের কাছে বিয়ের প্রস্তাব দিলে সাইফুল তাতে রাজী হয়নি। উপরন্তু সে প্রেমিকা রুপার সাথে মোবাইলে কথা বলা বন্ধ করে দেয়। হঠাৎ করে গত ৩ ডিসেম্বর রাতে সাইফুল ফোন করে রুপাকে হুমকি দেয়। সাইফুলের এমন অনাকাঙ্খিত আচরণে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়ে রুপা। ফলে সে আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নেয়। ওই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৪ ডিসেম্বর রাত ১০টার পর বাড়ীর সামনে সে তার শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। দীর্ঘক্ষণ দগ্ধ হওয়ার পর গন্ধ পেয়ে তার পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে মুলাদী উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যায়। সেখান থেকে তাকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। হাসপাতালের চিকিৎসক অধ্যাপক ডাঃ এএসএম সরফুজ্জামান জানান, সাধারণ কোন মানুষের শরীরের ৩০ ভাগ পুড়ে গেলে তাকে বাঁচানোটা খুবই সমস্যা। সেক্ষেত্রে রুপার শরীরের প্রায় ৯০ ভাগ পুড়ে গেছে। ফলে তার অবস্থা আশংকাজনক।

তিনি উন্নত চিকিৎসার জন্য রুপাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। এ ব্যাপারে রুপার বাবা মিজানুর রহমান জানান, আর্থিক সমস্যার কারণে রুপার প্রয়োজনীয় চিকিৎসা করানো সম্ভব হচ্ছে না। অর্থ সংগ্রহ করা গেলে তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হবে। তিনি সাইফুলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ারও দাবী জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে মামলা দায়েরেরও প্রস্তুতি চলছে বলেও তিনি জানান।

আরও পড়ুন

Back to top button
Translate »