আর্কাইভ

গৌরনদীতে চরের জমি দখলে রাখতে এলাকাবাসির লাঠিসোটা নিয়ে মহড়া

কবল থেকে দখলে রাখতে বরিশালের গৌরনদী উপজেলার সরিকল ইউনিয়নের প্রত্যন্ত নলগোড়া গ্রামের সাধারন খেটে খাওয়া দিনমজুরেরা লাঠিসোটা নিয়ে গত এক সপ্তাহ থেকে মহড়া অব্যাহত রেখেছেন।

গতকাল শুক্রবার দুপুরে সরেজমিনে এলাকাবাসির সাথে আলাপকালে জানা গেছে, আড়িয়াল খাঁ নদীর শাখা পালরদী নদীর পাড়ের নলগোড়া এলাকায় শত বছর পূর্বে এক’শ একরেরও অধিক বিশাল চর জেগে ওঠে। সেই থেকে অদ্যবর্ধি পূর্ব পুরুষদের ন্যায় হোসনাবাদ মৌজার নলগোড়া এলাকার ওই চরের জমিটি ভোগ দখলে রয়েছেন নলগোড়া গ্রামের প্রায় শতাধিক পরিবার। ওই গ্রামের হাকিম কবিরাজ (৮০), আবুল কালাম রাঢ়ী (৮৫), ছালাম বেপারী (৬৫), আজমল বেপারী (৫০), হারুন হাওলাদার (৫৫)সহ অনেকেই জানান, তাদের পূর্ব পুরুষের লোকজনে বৈধভাবে ওই জমি ভোগ দখলে রয়েছেন। সেমতে পৈত্রিক সূত্রে তারা এখন ওই জমি ভোগদখল করছেন। ওই গ্রামের বাবুল কবিরাজ (৫০), ইউপি সদস্য ছালাম বেপারী (৫৮), আব্দুর রহমান (৬০)সহ অনেকেই বলেন, দীর্ঘদিন থেকে তাদের ওই চরের জমির ওপর লোলুপ দৃষ্টি পরে পাশ্ববর্তী মুলাদী উপজেলার বাসিন্দা ও ভূমিদস্যু আবুল হোসেন হাওলাদার, ফরিদ তালুকদার, মহর আলী সরদার, লিটন ঢালী, মালেক হাওলাদার, কবির ঢালী ও নাসির হাওলাদারের। সেমতে গত শনিবার সকালে উল্লেখিত ভূমিদস্যুরা তাদের লাঠিয়াল বাহিনী নিয়ে সশস্ত্র অবস্থায় আড়িয়াল খাঁ নদীর পাড়ের নলগোড়া এলাকার ওই চরের জমি দখল করতে আসে। এসময় নলগোড়া গ্রামের বাসিন্দারা লাঠিসোটা নিয়ে তাদের ধাওয়া করেন। একপর্যায়ে ভূমিদস্যুরা তাদের লাঠিয়াল বাহিনী নিয়ে পিছু হটে। ভূমিদস্যুরা তাদের দলবল নিয়ে পূর্ণরায় চরের জমি দখল করতে আসতে পারে এ আশংকায় সেই থেকে অদ্যবর্ধি নলগোড়া এলাকার বাসিন্দারা চরের জমি ও তার পাশ্ববর্তী এলাকায় লাঠিসোটা নিয়ে মহড়া অব্যাহত রেখেছেন। নলগোড়া গ্রামের বাসিন্দা এনামুল হক (৩৫) বলেন, এই চরের জমির সকল কাগজপত্র আমাদের নামে।

তার পরেও ভূমিদস্যুরা তাদের দলবল নিয়ে জোড়পূর্বক জমি দখল করার নানামুখী ষড়যন্ত্র অব্যাহত রেখেছেন। তিনি আরো বলেন, যখনই ভূমিদস্যুরা জমির কাছে আসবে তখনই তাদের প্রতিহত করা হবে। এ নিয়ে ওই এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। 

নলগোড়া এলাকার খেটে খাওয়া সাধারন কৃষকেরা তাদের বৈধ সম্পত্তির দখল টিকিয়ে রাখতে ও ভূমিদস্যুদের কবল থেকে রেহাই পেতে প্রশাসনের উধ্বর্তন কর্মকর্তাদের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

আরও পড়ুন

আরও দেখুন...
Close
Back to top button
Translate »