আর্কাইভ

ই-প্রতারণার সাম্প্রতিক জাল

 

বাংলাদেশেও সম্প্রতি এমনই প্রতারণার জাল ছড়িয়ে পড়েছে। ডিভি লটারি এবং ফেসবুক লটারির মাধ্যমে প্রতারণার শিকার হচ্ছেন অনেকেই। সম্ভাব্য সুযোগ এবং অর্থের হাতছানি দিয়ে মেইলের ইনবক্স ভর্তি হচ্ছে স্প্যাম মেইলে। একটু ভালোভাবে খেয়াল করলে সহজেই বোঝা যাবে ইনবক্সে আসা এসব মেইল কেবলই স্প্যাম।

সম্প্রতি অনেকের কাছেই এসেছে ডিভি লটারি জেতার মেইল। আর সচেতনতার অভাবে প্রতারকদের ফাঁদে পড়ার শংকা তৈরি হচ্ছে। বাংলাদেশে ফেসবুক এবং ডিভি লটারির জনপ্রিয়তার সুযোগ নিয়ে এইসব প্রতারণার জাল বিস্তার করছে অপরাধীরা।

ডিভি লটারি’র মুলো
‘স্বপ্নের দেশ’ আমেরিকায় যাওয়ার রাস্তা হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের প্রবর্তিত ডাইভারসিটি ভিসা লটারি বা ডিভি লটারি নিয়ে এদেশের সাধারণ মানুষের উন্মাদনার শেষ নেই। এই উন্মাদনাকেই কাজে লাগিয়ে ফেসবুকসহ অন্যান্য জনপ্রিয় যোগাযোগ সাইটে প্রতারণার ফাঁদ পাতা রয়েছে। ফাঁদটি মূলত এমন: হঠাৎ করেই একদিন আপনার ইনবক্সে খুঁজে পাবেন কেতা দুরস্ত ভাষার অপরিচিত ঠিকানার এক ইমেইল। সেখানে লেখা, আপনি সেইসব গুটিকয় ভাগ্যবানদের একজন, যারা ডিভি লটারি জিতে আমেরিকা যাওয়ার সুবর্ণ সুযোগটি পেয়ে গেছেন । ভিসা প্রসেসিং এবং অন্যান্য দাপ্তরিক জটিলতা বাবদ একটি নির্দিষ্ট পরিমাণের ডলার আপনাকে একটি নির্দিষ্ট ঠিকানায় পাঠাতে হবে এবং সেজন্য প্রয়োজন আপনার ক্রেডিট কার্ড নাম্বার বা অনলাইন ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নাম্বার এবং এর পাসওয়ার্ড। তবে, জানার বিষয়, আমাদের দেশে খুব কম লোকেরই অনলাইনে অ্যাকাউন্ট রয়েছে। কিন্তু প্রতারকদের তাতে সমস্যা হয় না। অনলাইন অ্যাকাউন্ট না থাকার কথা জানালে তারা নিজেদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ডলার পাঠানোর জন্য তাগাদা দেন। কারণ এই সব মেইল আন্তর্জাতিক কিছু প্রতারকচক্রের আপনার টাকা হাতিয়ে নেবার কৌশল ছাড়া আর কিছু নয়।

এমনই একটি মেইলের নমুনা দেখুন এই লিংক-এ

সংবাদমাধ্যম সিনেট-এর বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যে ঠিকানা থেকে ডিভি জেতার মেইলটি আসে সেটি হলো gov.states@usa.com। যুক্তরাজ্যের গ্রিন কার্ড পাবার মুলো দেখিয়ে অর্থ পাঠাতে বলা এই সাইটটি মুলত একটি স্প্যাম। আর এই স্প্যাম মেইলের অনেক রকম নমুনাও আছে। বিভিন্নজনের কাছে আসা এমন মেইল এবং অভিযোগ বিশ্লেষণ করে সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে, ডিভি লটারির মাধ্যমে গ্রিন কার্ড পাঠানোর পদ্ধতিটি এই মেইলে আসা পদ্ধতিটির মতো আদৌ নয়। এমনকি গ্রিন কার্ড পেতে অর্থ হস্তান্তর তো নয়ই। ডিভি লটারির জন্য যুক্তরাষ্ট্র সরকারের একটি ওয়েবসাইটই আছে। সে সাইটটির ঠিকানা

০২.    02.    gov.states@usa.com ঠিকানাটি মার্কিন কোনো অফিসের ঠিকানা নয়। বিশ্বাস না হলে অনলাইনে usa.com ওয়েবসাইটটিতে গিয়ে দেখুন। ওই সাইটের হোম পেজেই লেখা রয়েছে- ‘ USA.COM is a publication of World.com Media.’। এর মানে হলো এটি একটি প্রাইভেট প্রতিষ্ঠান, সরকারি নয়।

পুরস্কার! পুরস্কার!! পুরস্কার!!!
ডিভি লটারির মতো বিশালভাবে না হলেও অনলাইন লটারির মাধ্যমে পুরস্কার জেতা নিয়েও মানুষের উন্মাদনাও কিন্তু কম নয়। আর তাই ইন্টারনেটের ফ্রি সফটওয়ার ডাউনলোড ওয়েবসাইটের বেশে এমনি সব অনলাইন পুরস্কার জেতার লোভ দেখিয়ে টাকা আদায় করে নেওয়ার প্রতারণাও চলছে বেশ ভালোভাবেই।

ডিভি লটারির মতো এখানেও প্রতারকদের হাতিয়ার ঐ স্প্যাম মেইল। এই সব মেইলে পুরস্কারের লোভনীয় সব প্রস্তাব এমনই আকর্ষণীয়ভাবে তুলে ধরা হয় যে যার কাছে মেইলটি পাঠানো হয়, সে এর লোভ কিছুতেই সামলাতে পারে না। ফলাফল অপরিচিত ঠিকানায় নিজের ক্রেডিট কার্ডের নাম্বর এবং পাসওয়ার্ড প্রেরণ এবং যথারীতি ধরা! অনেকসময় মোবাইলে এসএমএস পাঠানোর মাধ্যমেও চলে এসব জালিয়াতি। এসব ক্ষেত্রে প্রতারকদের ধরার সুযোগ অনেক সময় থাকলেও সাইবার অপরাধীরা থেকে যায়  ধরাছোঁয়ার বাইরে।

অবশ্য, বাংলাদেশে সাইবার অপরাধী শনাক্তে প্রতিটি নিরাপত্তা বিভাগে বিশেষ দল আছে। তবে, অনলাইন এসব প্রতারণা ঠেকাতে নিজের সচেতনতা দরকার সবচেয়ে আগে।

মানবিক আবেদনের সুযোগ

এখনকার কর্পোরেট দুনিয়ায় বিক্রি হয় সবই। মানুষের সূক্ষতম আবেগটিও বিক্রির তালিকা থেকে বাদ যায় না। তাহলে সাইবার বিশ্বই বা পিছিয়ে থাকবে কেন? তারাও মানুষের আবেগ ব্যবহার করে যথেষ্টই লাভবান হচ্ছে। এক্ষেত্রেই সুযোগের অপব্যবহার করছে প্রতারকেরা। মিথ্যা মানবিক সাহায্যের আবেদন করে ঠকাচ্ছে সরল মনের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীকে। তাদের কৌশলের নমুনাটি এরকম: অজানা ঠিকানা থেকে পাঠানো মেইল এ মেইল মালিক নাইজেরিয়া, কেনিয়া, আইভরি কোস্ট, যুক্তরাষ্ট্র বা ইংল্যান্ডের কোনো হোটেলে মানবেতর জীবনযাপন করছে বলে উল্লেখ করে। তাতে বলা হয়, ‘ছিনতাইকারীরা তার (মেইল মালিকের) ভিসা-পাসপোর্ট, কাগজপত্র, মোবাইল সেট নিয়ে গেছে। এখন টাকার অভাবে দেশে আসতে পারছেন না। তাই সাহায্যের প্রয়োজন।’ ওই মেইলে একটি ঠিকানা দিয়ে ডলার পাঠাতে বলা হয়। এছাড়াও রয়েছে অন্যসব অভিনব কৌশলও। যেমন আফ্্িরকার কঙ্গো বা এ রকম কোনো যুদ্ধকবলিত দেশে আটক রয়েছেন কোনো তরুণী। তার পিতা ছিলেন কোনো ধনী ব্যবসায়ী বা আমলা। যুদ্ধে তিনি নিহত হয়েছেন। এখন এ তরুণী তার অ্যাকাউন্টে থাকা বিশাল ডলারের সমুদ্র নিয়ে বিপাকে পড়েছেন। তা কোনো নির্ভরযোগ্য ব্যক্তির অ্যাকাউন্টে পাঠাতে হবে। পৃথিবীতে আপনি ছাড়া (ই-মেইলপ্রাপ্ত ব্যক্তি) আর কাউকে তিনি বিশ্বাস করতে পারছেন না! এখন আপনার অনলাইন অ্যাকাউন্ট তার জানা খুবই দরকার সাথে পাসওয়ার্ডও। একবার তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা তাদের আবেগঘন মেইলের সঙ্গে আবেদনময় ছবিও পাঠিয়ে দেয়।

প্রতারণার কৌশল
কম্পিউটার হ্যাকিং-ই এইসব প্রতারকদের মূল হাতিয়ার। ইন্টারনেট নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান সিমেনটেক-এর গবেষকরা বলছেন, হ্যকাররা এতোটাই এগিয়েছে যে, প্রতিনিয়ত স্প্যাম ছড়ানোর কাজটি তারা সুনিপুণ ভাবে করে যাচ্ছে। আর তাদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে নতুন অ্যান্টিভাইরাস তৈরি করতে হচ্ছে। জানা গেছে, হ্যাকার চক্রগুলো অ্যাকাউন্ট অ্যাডমিনিস্ট্রেটর নামে আইডি ব্যবহার করে মেইল আইডি ও পাসওয়ার্ড চেয়ে মেইল পাঠায়। কেউ যদি হ্যাকারদের মেইলের জবাব দিয়ে পাল্টা মেইল করে তখন ঘটে যত বিপত্তি। পাল্টা মেইল পাওয়ার পর হ্যাকাররা প্রথমে পাসওয়ার্ড দিয়ে মেইল আইডি নিজেদের আয়ত্তে নিয়ে নেয়। এবং ওখান থেকেই তাদের যত রকমের প্রতারণার কাজকর্ম চালায় তারা। এভাবই মূল প্রতারক আড়ালে থেকে নিরাপত্তা ব্যাবস্থাকে ক্রমাগত ধোঁকা দেয়।

আপনার নিরাপত্তা
এসব থেকে সুরক্ষা পেতে তাই সতর্ক হতে হবে। ব্রাউজিংয়ের ক্ষেত্রে ভেরিফাইড সাইটগুলো ছাড়া অন্যান্য সাইট ব্যবহারে সতর্কতা অবলম্বন জরুরি। সবচেয়ে বেশি জরুরী হলো কোনো ওয়েবসাইটের বিজ্ঞাপন দেখেই ক্লিক করে না বসা।

এ সবের পাশাপাশি যেসব সাইট ম্যালওয়্যার বা স্পাইওয়্যার ছড়াতে পারে সেগুলো থেকে দূরে থাকারই পরামর্শ দিয়েছেন নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা। পর্নো সাইটগুলোতে ঢোকার ব্যাপারেও প্রয়োজন সচেতনতা। এসব ক্ষেত্রে ফায়ারওয়াল ব্যবহার করাটাই সবচেয়ে বুদ্ধিমানের কাজ। এ ছাড়াও নিজের তথ্যগুলো ভালোভাবে সংরক্ষণ করতে আপনার পাসওয়ার্ডগুলোকে আরো বেশি শক্তিশালী করার পরামর্শ দেন ইন্টারনেট নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান সফোস-এর বিশেষজ্ঞ গ্রাহাম ক্লুলেই।

পাসওয়ার্ড সতর্কতা ছাড়াও নিরাপত্তা হিসেবে সাইবারবিশ্বে অ্যান্টিস্প্যাম এবং অ্যান্টিস্পাইওয়ার টুলের জনপ্রিয়তা এ কারণেই এখন তুঙ্গে। বিভিন্ন টুল ইনস্টল এবং অ্যান্টিভাইরাস ব্যাবহার প্রতারণার ফাঁদ এড়াতে সক্ষম হবে।

তবে, মনে রাখবেন, সবচেয়ে বড় রক্ষা কবজ হলো আপনার সচেতনতা।

শুভ ও নিরাপদ হোক আপনার অনলাইন অভিজ্ঞতা।

– BDnews24.com

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন

Back to top button
Translate »