আর্কাইভ

বাবুগঞ্জে আওয়ামী প্রার্থীর পরাজয়ে তান্ডব

প্রার্থীর পরাজয়ে এলাকায় তান্ডব চলছে। প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীর বাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। সেখানে চরম উত্তেজনাকর পরিস্থিতি বিরাজ করছে। সাধারন নারী-পুরুষের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়ছে।

জানা গেছে, কেদারপুর ইউপির নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন মৃধা। আর পরাজিত হলেন আ’লীগ নেতা আতাউর রহমান বিশ্বাস। এছাড়া অপর প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীরা হলো জাতীয় পার্টি সমর্থিত প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন ও ওয়ার্কাস পার্টি সমর্থিত জামাল হোসেন। বৃহস্পতিবার রাতে ভোটের ফলাফলে আওয়ামী প্রার্থী আতাউর রহমান বিশ্বাস পরাজিত হওয়ার পর তিনি নিজ বাড়িতে কর্মী সমর্থকদের এক সভায় মিলিত হওয়ার আহব্বান জানান। এরফলে শুক্রবার সকাল ১০টায় সভা বসে। আতাউর রহমানের পরাজয়ের মুল কারন হিসাবে জাতীয় পার্টির প্রার্থী ও ওয়ার্কাস পার্টির প্রার্থীকে দায়ী করা হয়। সভা শেষে কেদারপুর ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি শাজাহান মিয়ার নেতৃত্বে আতাউর রহমানের ক্যাডাররা লাঠি সোটা নিয়ে সানি কেদারপুর জামাল বিশ্বাসের বাড়িতে হানা দেয়। জামালের বাড়িতে অতর্কিতভাবে সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয়। হামলায় বাড়ির বেশ কয়েক ব্যাক্তি আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে রয়েছে মজিবর রহমান (৩৮), বাবুল হোসেন (৩৪) ও মাজেদুল ইসলাম (৩০)। হামলার খবর পেয়ে জামাল হোসেনের সমর্থকরা প্রতিরোধ গড়ে তোলে সন্ত্রাসীদের ধাওয়া করে। উভয়ের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার মুখে আতাউর রহমানের ক্যাডার বাহিনী পিছু হটেছে। জামাল হোসেন বলেন, হামলার সময় তিনি বাড়িতে ছিলেন না। তিনি বলেন আতাউর রহমানের সন্ত্রাসী বাহিনী বাড়িতে হামলার পর এখন তার সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি হামলার ঘোষনা দিয়েছে। এতে তার সমর্থকরা বেশ আতংকে রয়েছে।

অপরদিকে একই ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের  পশ্চিম ভুতেরদিয়া গ্রামের পরাজিত মেম্বার প্রার্থী মুসা বিজয়ী প্রার্থী মোসলেম উদ্দীনের সমর্থকদের বাড়িতে হামলা ভাংচুর করছে। সকাল সাড়ে ১০টায় বিজয়ী মেম্বার প্রার্থী হামেদ প্যাদার বাড়ি ভাংচুর করে। কয়েক ঘন্টা ব্যাপী হামেদ প্যাদার বাড়িতে তান্ডব চালিয়েছে। বাবুগঞ্জ থানার ওসি রফিকুল হোসেন বলেন, কেদারপুরে হামলার ঘটনায় পুলিশ পাঠানো হয়েছে। কেউ লিখিত অভিযোগ দিলে মামলা হিসাবে রেকর্ড করা হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন। পরাজিত প্রার্থী আতাউর রহমান বিশ্বাস বলেন তার সমর্থকরা কারো বাড়িতে হামলার ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয়।  এদিকে আওয়ামী সমর্থিত প্রার্থীদের বিভিন্ন স্থানে ভরাডুবিতে বৃহস্পতিবার রাতে বাবুগঞ্জ উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারজানা বিনতে ওহাব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোর্শেদা আক্তারকে সেল ফোনে অমার্জিত ভাষায় গালাগাল দিয়েছেন।

আরও পড়ুন

Back to top button