আর্কাইভ

টরকী ক্যাম্পে পুলিশ মোতায়েনের দাবি

গ্রামে রাতের আধাঁরে শক্তিশালী চারটি বোমা বিস্ফোরনের একদিন পর শনিবার রাতে শতাধিক চিরকুট বিলি করা হয়েছে। এ নিয়ে ওই পাড়ায় এখন চরম আতংক দেখা দিয়েছে।

জানা গেছে, শনিবার গভীর রাতে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিরা হিন্দু অধুষ্যিত বেকীনগর গ্রামের প্রায় প্রতিটি ঘরের সম্মুখে হাতের লেখা চিরকুট ফেলে রেখে যায়। লাল কালির হাতের লেখা চিরকুটে উল্লেখ রয়েছে-“বেকীনগরবাসী যেকোনো মুহুর্তে আপনাদের ওপর হামলা হবে। এক্ষুনি সর্তক পাহারা বসান। সঠিক সংবাদ দলের একজন”। গতকাল রবিবার ভোরে হিন্দু অধ্যুষিত গ্রামের প্রতিটি ঘরের সম্মুখে এ চিরকুট পেয়ে ওই এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে আতংক দেখা দেয়।

খবর পেয়ে গৌরনদী থানার এসআই আনোয়ার হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ১০টি চিরকুট উদ্ধার করে। ওই গ্রামের বাসিন্দা ও টরকী বন্দরের ব্যবসায়ী শেখর দত্ত বণিক জানান, এরপূর্বে শুক্রবার গভীর রাতে অজ্ঞানামা দুস্কৃতকারীরা বেকীনগর গ্রামে পর পর চারটি শক্তিশালী বোমার বিস্ফোরন ঘটায়। ওই গ্রামের একাধিক বাসিন্দা ও টরকী বন্দরের ব্যবসায়ীরা জানান, ঐতিহ্যবাহী টরকী বন্দরসহ পাশ্ববর্তী এলাকার জনসাধারনের জানমালের নিরাপত্তার জন্য র্দীঘদিন পূর্বে টরকীতে একটি পুলিশ ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছিলো।

বর্তমানে ওই ক্যাম্পে কোন পুলিশ সদস্য না থাকায় জনগুরুতপূর্ণ টরকী বন্দর ও পার্শ্ববর্তী এলাকার বাসিন্দারা এখন তাদের নিরাপত্তার জন্য রিতীমতো শংকিত হয়ে পরেছেন। অনতিবিলম্বে টরকী বন্দর ক্যাম্পে পুলিশ পুলিশ মোতায়েনের জন্য গতকাল রবিবার বিকেলে এলাকাবাসি থানায় লিখিত আবেদন করেছেন।

আরও পড়ুন

Back to top button