আর্কাইভ

বাকেরগঞ্জে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতা-কর্মীদের অভিযোগ

দানিসুর রহমান লিমন, বাকেরগঞ্জঃ বাকেরগঞ্জ প্রেসক্লাবে গতকাল সংবাদ সম্মেলন করেছেন উপজেলা বিএনপি নেতৃবৃন্দ। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন উপজেলা বিএনপি সাধারন সম্পাদক খলিলুর রহমান সিকদার। সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করেন গত ২৪ জুলাই বরিশাল রূপাতলীর তাজু সিকদার, সবুজ মেম্বার, বাকেরগঞ্জের আলিম জোমাদ্দার, মনির সিকদার সহ একদল সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসী চাঁদার দাবীতে বরিশাল যাবার পথে দপদপিয়া ব্রিজের টোল ঘরের উত্তর পার্শ্বে মালিক সমিতির ঘরের সামনে বসে  উপজেলা বিএনপি সাধারন সম্পাদক খলিলুর রহমান সিকদারের গাড়ী থামিয়ে তাকে মারধর করে এবং খুন জখমের হুমকি দেয়। এ ঘটনায় তিনি গত ২৪ আগষ্ট বরিশালের দ্রুত বিচার আদালতে ১৫ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। ঐ মামলায় ১ ও ২ নং আসামী সহ সাবেক এমপি আবুল হোসেনের কর্মী মনির সিকদার বর্তমানে জেল হাজতে রয়েছেন। এ মামলা থেকে অব্যহতি পেতে সাবেক এমপি সংস্কারপন্থী বিএনপি নেতা আবুল হোসেন খানের ইন্ধনে বরিশাল রূপাতলীর জনৈক এনায়েদ হোসেন মোল্লা বাদী হয়ে গত ১৯ সেপ্টেম্বর উপজেলা বিএনপি সাধারন সম্পাদক খলিলুর রহমান সিকদার, পৌর বিএনপি সভাপতি মতিউর রহমান মোল্লা, সাধারন সম্পাদক মোফাজ্জেল হোসেন, উপজেলা যুবদল সাধারন সম্পাদক খবির সিকদার, পৌর যুবদল সভাপতি মোজাম্মেল হোসেন, সহ-সভাপতি মোঃ রফিকুল ইসলাম সহ সিকদার খলিলুর রহমানের মামলার ৩ জন স্বাক্ষী ও বরিশালের বিশিষ্ট ঠিকাদার কবির সিকদারকে আসামী করে বরিশাল চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলি আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং- এমপি ৩৪৬/১১. সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি অভিযোগ করেন, উক্ত মামলায় বাদীর পক্ষে মামলা পরিচালন করছেন বরিশাল মহানগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক এ্যাড. কামরুল আহসান শাহীন। এ্যাড. শাহীন নিজে বিএনপির নেতা হয়েও বিএনপির ১১ জন নেতা-কর্মীর নামে সাজানো ঘটনা দেখিয়ে মামলা করায় তারা হতবাগ হয়েছেন। তারা আরও অভিযোগ করেন, সংস্কারপন্থী আবুল হোসেন খান বিএনপিদের ধ্বংশ করার জন্য বাদী এনায়েতকে ম্যানেজ করে তাদের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক ও ভিত্তিহীন একটি মামলা দায়ের করিয়েছেন। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতৃবৃন্দ বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন এবং এ ঘটনা তদন্তপূর্বক তারা মামলা থেকে অব্যহতি পেতে পুলিশের আইজি সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি ও সহযোগীতা কামনা করেছেন।

আরও পড়ুন

Back to top button
Translate »