আর্কাইভ

এবার ফাঁটা কেষ্ট’র ভূমিকায় বরিশালের মেয়র হিরন

নিজস্ব সংবাদদাতা ॥ এবার চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে ফাঁটা কেষ্টর ভূমিকা নিয়ে মাঠে নেমেছেন বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র শওকত হোসেন হিরন। প্রথম দিনেই তিনি সফল হয়েছেন। দু’চাঁদাবাজকে হাতে নাতে আটক করে পুলিশের কাছে সোর্পদ করে পুরো নগরীতে মেয়র হিরন বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন।

সূত্রমতে, দীর্ঘদিন থেকে মেয়র হিরনের নাম ভাঙ্গিয়ে জেলা ব্যাটারী চালিত অটো শ্রমিক ইউনিয়ন ও অটো মালিক সমিতি ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রতি অটোরিক্সা থেকে দৈনিক ১০ টাকা করে চাঁদা তুলে আসছে। ভুক্তভোগী অটোরিকসা চালকেরা এর প্রতিবাদ করলে চাঁদবাজরা সিটি মেয়রের নির্দেশে এ টাকা তোলা হয় বলে হুমকি প্রদর্শন করে। নগরীর রূপাতলী থেকে শুরু করে লঞ্চঘাট, সদর রোড, নথুল্লাবাদ এলাকায় প্রকাশ্যেই এ চাঁদাবাজি চলে আসছিলো। চাঁদাবাজির মাধ্যমে প্রতিদিন এ দু’সংগঠন আয় করতো প্রায় ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা। আর অটো চালকেরা চাঁদাদিতে না চাইলে তাদের মারধরসহ লাইসেন্স আটকে রাখা হতো। অটোরিকসা চালকদের কাছ থেকে এহেন নানা অভিযোগের ভিত্তিতে ক্ষিপ্ত হয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার কাক ডাকা ভোরে মেয়র হিরন লুঙ্গি পড়া অবস্থায়ই রূপাতলী বাস টার্মিনাল গিয়ে চাঁদাবাজির ঘটনাগুলো নিজেই পরোক্ষ করেন। একপর্যায়ে চাঁদাবাজদের ধরার জন্য লুঙ্গি হাটু কাছা করে মেয়র নিজেই ধাওয়া করে মনিরুজ্জামান নামের এক চাঁদাবাজকে আটক করেন। পরবর্তীতে লঞ্চঘাট এলাকায় হানা দিয়ে মেয়র হিরন পূর্বের ন্যায় বাদল নামের আরেক চাঁদাবাজকে হাতে নাতে আটক করেন। আটককৃতদের পুলিশের কাছে সোর্পদ করা হয়েছে। চাঁদাবাজ দমনে মেয়রের এ ব্যতিক্রমধর্মী ঘটনাটি এখন নগরীর সকলের মুখে মুখে। চা দোকানী থেকে শুরু করে সকল পেশার মানুষের মুখেই এখন একটি কথা শোনা যাচ্ছে মেয়র হিরন বরিশালের “ফাটা কেষ্ট”।

উল্লেখ্য, এরপূর্বে গভীর রাতে সিটি কর্পোরেশন থেকে অবৈধ পানির লাইনে পানি সরবরাহের সময় মেয়র হিরন এক কর্মচারীকে হাতে নাতে আটক করেছিলেন।

আরও পড়ুন

আরও দেখুন...
Close
Back to top button
Translate »