আর্কাইভ

আগৈলঝাড়ায় চোলাই মদের কারখানা আবিস্কার – ৪৫ লিটার মদ উদ্ধার – এলাকায় অসন্তোষ

নিজস্ব সংবাদদাতা ॥ বরিশালের আগৈলঝাড়ায় চোলাই মদ তৈরীর কারখানা আবিস্কার করেছে পুলিশ। কারখানায় তৈরী তিনটি কলসে ভর্তি ৪৫ লিটার চোলাই মদ উদ্ধার ও তিন জনকে গ্রেফতার করলেও গতকাল শুক্রবার গ্রেফতারকৃতদের ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে জরিমানা করে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। এ বিচারের রায়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন এলাকার সচেতন মহল।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার কাঠীরা গ্রামের অসিম বৈরাগী তার নিজ বাড়িতে দীর্ঘদিন ধরে চোলাই মদ (দেশীয় উৎপাদন কারী মদ) তৈরীর কারখানা স্থাপন করে এলাকার মাদক সেবীদের কাছে হরদমে বিক্রি করে আসছিলো। ফলে এলাকার যুব সমাজ মদ্যপানে আসক্ত হয়ে বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পরে। আগৈলঝাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মোঃ সাজ্জাদ হোসেন গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে একদল পুলিশ নিয়ে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে অভিযান চালিয়ে মদ তৈরীর কারখানার সন্ধ্যান পান। এসময় চোলাই মদ তৈরির কারখানার মালিক ওই গ্রামের সরবিন্দু বৈরাগীর পুত্র অসিম বৈরাগী (৩০) তার সহযোগী একই গ্রামের অক্ষয় বৈরাগীর পুত্র বাবুল বৈরাগী (৫০), মথুরানাথ মুহুরীর পুত্র প্রিয়লাল মুহুরীকে (৫০) গ্রেফতার করে। এসময় পুলিশ ওই কারখানার তৈরী তিন কলস (৪৫ লিটার) চোলাই মদ উদ্ধার করে। স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, এ অভিযানে গ্রেফতারের পর থেকে স্থানীয় প্রভাবশালী এক রাজনৈতিক নেতা গ্রেফতারকৃতদের রক্ষা করতে মরিয়া হয়ে ওঠে। তারই ধারাবাহিকতায় নানা নাটকীয়তার পর গতকাল শুক্রবার থানার এএসআই নুরুল ইসলাম অবধৈভাবে মদ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বিপননের অভিযোগ এনে গ্রেফতারকৃতদের চোলাই মদসহ ভ্রাম্যমান আদালতের ম্যাজিষ্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কালাম তালুকদারের আদালতে সোর্পদ করে। আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট গ্রেফতারকৃত তিনজনকে মাদকদ্রব্য আইনের ১০ (২) ধারায় বিচার করে নগদ ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। আদালতের এ রায়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক পুলিশ কর্মকর্তাসহ এলাকার সচেতন মহল।

এ ব্যাপারে আদালত পরিচালনাকারী অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক পদ মর্যাদার একাধিক কর্মকর্তা মাদকদ্রব্য আইন ও আদালতের উল্লেখিত রায় সম্পর্কে বলেন, মদ উৎপাদনের বিচার কার্যক্রম ভ্রাম্যমান আদালতের এখতিয়ার বহির্ভূত। ১০ (২) ধারা মোতাবেক মজুদ রাখার রায় দেয়া হয়েছে। বিপনন ধারার রায় দেয়া হয়নি। এটা আদালত কেন করেছে তা আদালতের নিজস্ব ব্যাপার। তবে রায়ের বিরুদ্ধে যে কেউ আপীল করতে পারেন। ভ্রাম্যমান আদালতের ম্যাজিষ্ট্রেট ইউএনও আবুল কালাম তালুকদার বলেন, গ্রেফতারকৃত অসিম বৈরাগীর আগামী রবিবার বিয়ে। তাছাড়া  এলাকার অনেকেই আদালতকে বলেছেন, তারা উৎসবের জন্য মদ তৈরী করছিলেন। উৎপাদন করে তারা বিক্রি করেননা। তাই সামাজিক, মানবিক ও পারিপার্শিক বিবেচনা করে আদালত রায় ঘোষনা করেছে।

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন

Back to top button
Translate »