আর্কাইভ

বরিশাল-ভোলা-লক্ষীপুর রুটে ফেরি সংকটে তীব্র যানজট

নিজস্ব সংবাদদাতা ॥ বরিশাল-ভোলা-লক্ষীপুর রুটে ফেরি সংকট ও ডুবোচরের কারণে পারাপারে মারাত্মক বিঘেœর সৃষ্টি হচ্ছে। এতে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সাধারণ যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের। ঘাটে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থেকেও ফেরির দেখা মিলছে না। ফলে উভয় পাড়ে সৃষ্টি হচ্ছে তীব্র যানজটের।

ঘাটে অপেক্ষমান পরিবহন ও ট্রাক চালকদের সাথে আলাপকালে জানা গেছে, এ রুটে বিকন ও মার্কা বাতি না থাকায় রাতের বেলায় ফেরি চলাচল করতে পারছে না। এছাড়াও জরুরি ভিত্তিতে এ নদীতে ড্রেজিং করা না হলে যেকোনো সময় এ রুট বন্ধ হয়ে যেতে পারে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দক্ষিণাঞ্চলের জেলা ভোলার সাথে সড়কপথে যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে ভোলা-লক্ষীপুর ও ভোলা-বরিশাল ফেরি সার্ভিস। এসব রুট দিয়ে প্রতিদিন শতাধিক যাত্রী ও মালবাহী যানবাহন এবং হাজার হাজার যাত্রী আসা-যাওয়া করে। এ রুটে চারটি ফেরি চলাচল করলেও প্রায় সময়ই একটি ফেরি বিকল থাকে। তখন যাত্রীদের সীমাহিন ভোগান্তি পোহাতে হয়।

এ ব্যাপারে কামিনী ফেরীর চালক নাজিম উদ্দিন বলেন, চলতি শীত মৌসুমে ভোলা-লক্ষীপুর ও ভোলা-বরিশাল রুটের বিভিন্ন চ্যানেলে জেগে ওঠা ডুবোচর ও ঘন কুয়াশার কারণে এ সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। তিনি আরো জানান, বর্ষা মৌসুমে এ পথে দু’ঘন্টা সময় লাগলেও এখন যেতে সময় লাগছে তিন থেকে চার ঘন্টা। অপরদিকে, দীর্ঘদিন থেকে সাধারণ যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকেরা এসব রুটে ফেরি সার্ভিস বাড়িয়ে দেয়ার দাবি জানিয়ে আসলেও তা কোনো কাজেই আসেনি। প্রায় সময়ই ভোলা অংশের ইলিশা ও লক্ষীপুর অংশের মজুচৌধুরীর হাট ঘাটে যানবাহনের দীর্ঘলাইন লেগে থাকে। একই অবস্থা বরিশাল-ভোলা রুটের ভেদুরিয়া ও বরিশাল অংশের লাহারহাট ঘাটে। এ ব্যাপারে ভোলা-লক্ষীপুর ফেরি ঘাটের ইনচার্জ মোঃ সিহাব উদ্দিন বলেন, ডুবোচর সমস্যা তো আছেই। ফেরি চলাচল স্বাভাবিক করতে হলে জরুরি ভিত্তিতে নদীতে ড্রেজিং প্রয়োজন। তিনি আরো বলেন, এ রুটে বর্তমানে দুটি ফেরি চলাচল করছে। কিন্তু যানবাহনের চাপ অনেক বেশি। আরেকটি ফেরির কথা সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন

আরও দেখুন...
Close
Back to top button
Translate »