গৌরনদী সংবাদ

পিংগলাকাঠীতে সরকারী সম্পত্তি দখল করে ঘর উত্তোলন, থানায় মামলা

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার পিংগলাকাঠী গ্রামে ২টি পরিবারকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে সরকারী সম্পত্তি দখলের পর ঘর উত্তোলনের ঘটনায় অবশেষে মামলা দায়ের হয়েছে।

শুক্রবার রাতে নলচিড়া ভূমি অফিসের তহশীলদার মোসাঃ মমতাজ বেগম বাদী হয়ে গৌরনদী থানায় ডিগ্রীবাজ মন্নান সরদার ও তার স্ত্রী সাফিয়া, পুত্র শামীম সরদার, কন্যা ফাতেমা বেগম,সালমা বেগম সহ ১৫/১৬ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন।

গৌরনদী ভূমি অফিস সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার ১৫৬ পিংলাকাঠী মৌজার এস এ ৬৪ নং খতিয়ানের ১১০৫  দাগের ১ একর ৬৭ শতাংশ মালিক ছিল অতুল আচার্য্য, নগেন্দ্র নাথ আচার্য্য, জীবন কৃঞ্চ আচার্য্য। তারা ভারতে চলে যাওয়ার পর ওই জমি অর্পিত সম্পত্তি (ভিপি) হিসেবে ”ক” তফসিলভূক্ত হয়।

দীর্ঘদিন যাবত পিংলাকাঠী গ্রামের করম আলী মৃধা ওই জমি  সরকারের কাছ থেকে লিজ নিয়ে ঘরবাড়ী তৈরী করে পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করে আসছেন। করম আলী মৃধার মৃত্যুর পর তার পুত্র মোস্তফা মৃধা (৫২) ও স্বপন মৃধা (৩০) সরকারের কাছ থেকে ওই জমি লিজ নিয়ে ভোগ দখল করে আসছেন।

করম আলী মৃধার পুত্র মোস্তফা মৃধা জানান, আমার বাবা ১৯৬২সালে ওই জমিতে ঘরবাড়ি নির্মাণ করে আমাদের নিয়ে বসবাস করে আসছিল। কিছু দিন যাবত একই গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য ডিগ্রিবাজ মন্নান সরদার নিজের নামে জমির জাল কাগজপত্র তৈরী করে সম্পত্তি মালিকানা দাবি করে জমি দখলের পায়তারা করে আসছিল।

এ বিষয়ে গৌরনদী থানায় অভিযোগ করা হয়। তিনি আরো জানান, বৃহস্পতিবার সকালে  আ. মান্নান সরদার, গৌরনদী উপজেলা ছাত্রলীগের দূর্যোগ ও ত্রান বিষয়ক সম্পাদক হীরা হাওলাদার, সরকারি গৌরনদী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি কাজল হাওলাদার, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য মুকুল হাওলাদারের নেতৃত্বে সরকারী দলের এক থেকে দেড়,শ নেতা কর্মী লাঠিসোটা ও দেশীয় অস্ত্রে শস্ত্রে সজ্জিত হয়ে তার বাড়িতে হামলা চালায়।

এসময় তারা বাড়ির লোকজনকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ঘরের মধ্যে আটকে রাখে। তারা  জমির উপর ঘর উত্তোলন করে এবং জমির প্রায় ৩ লাখ টাকার গাছ কেটে নিয়ে যায়।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী পিংলাকাঠী গ্রামের সরোয়ার হোসেন সরদার, বারেক পাইক, রেনু বেগম সহ স্থানীয় লোকজন জানান, হামলাকারীরা বৃহস্পতিবার প্রত্যুষে ১২/১৫টি ট্রালার টেম্পু ও নসিমন নিয়ে এসে বাড়ির জমি দখল করে একটি টিনের দোচালা ঘর উত্তোলন করেন এবং সকাল ৭টা থেকে ১১টা পর্যন্ত বাড়ির জমিতে থাকা বিভিন্ন প্রজাতির ২০/২৫ টি গাছ কেটে নিয়ে যায়।

মোস্তফা জানান, ঘটনার সাথে সাথে থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ পৌছতে বিলম্ব করে। ইতিমধ্যে ঘর তোলা ও কর্তনকৃত অধিকাংশ গাছ নিয়ে যায় হামলাকারীরা।

শুক্রবার দুপুর ১২টায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মোস্তফার বাড়ির পুকুর পাড়ে মান্নান সরদার ও তার লোকজন একটি দোচালা টিনের ঘর নুতন ঘর নির্মান কাজ সম্পন্ন করেছে এবং পুকুরের পশ্চিম পাড়ে একটি নতুন ঘর তোলার সরঞ্জাম পড়ে আছে। এ ছাড়া বাড়ির পুকুর পাড়ের বিভিন্ন অংশের  জমিতে কেটে নেয়া গাছের গোড়া দেখা গেছে।

জানাগেছে শুক্রবার সকালে তারা পূনরায় গাছ কাটা শুরু করে কিন্তু পুলিশ আসার খবর পেয়ে তারা পালিয়ে যায়।

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে মান্নান সরদার বলেন, ১৯৯৬ সালে আদালতে ডিগ্রী বলে জমির বৈধ মালিক আমি এবং আমার জমিতে ঘর উত্তোলন করছি।

বৈধ মালিক হলে গোপনে এবং ভাড়াটে লোকজন নিয়ে কেন ঘর তুললেন প্রশ্নের জবাবে বলেন, ভাড়াটে এরা সকলেই আমার বংশের লোক।

বিলম্বে পৌছার অভিযোগ অস্বীকার করে গৌরনদী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে কর্তনকৃত গাছের অংশ বিশেষ জব্দ করেছে।

একটি সূত্র জানায় গৌরনদী থানা পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসন অজ্ঞাত কারণে বিষয়টি জেনেও না জানার ভান করছে। তারা  সরকারী সম্পত্তির অবৈধ দখলদার মান্নান সরদারের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা না নিয়ে বিষয়টিকে সালিশ মিমাংশার মাধ্যমে মিমাংশার চেষ্টা চালাচ্ছে।

গৌরনদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাসুদ হাসান পাটোয়ারী এ প্রসঙ্গে বলেন, ওই সম্পত্তি ক তফসিল ভূক্ত। আ. মান্নান সরদার অবৈধভাবে অনুপ্রবেশ করেছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা দেয়ার স্থানীয় তহশীলদারকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সংবাদ: মোঃ জামাল উদ্দিন


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...

Leave a Reply