আর্কাইভ

ছোট ভাইয়ের দখল সন্ত্রাসে বড় ভাইয়ের পরিবার হুমকীর মুখে

সম্পত্তি জবর দখল ও লাগানো অর্ধ লাখ টাকার গাছপালা কেটে সাবার করেছে সন্ত্রাসী মনোভাবের ছোট ভাই। ইতোমধ্যে বড় ভাইকে হত্যা প্রচেষ্টায় ধাড়ালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথারীভাবে কোপাতেও উদ্যিত হয়েছিল। অল্পের জন্য প্রানে বেচে গেছেন বড় ভাই। বড় ভাইয়ের পরিবারের সকল সদস্য জীবনের নিরাপত্তা হীনতায় দিনাতিপাত করছে। ঘটনাটি ঘটেছে ঝালকাঠির নলছিটির মগরপাড়া ইউনিয়নের ডুবিল গ্রামে

জানাগেছে,ডুবিল গ্রামের রহম আলী হাওলাদারের পুত্র ইউনুছ আলী হাওলাদার ও ওবায়দুল হক সেন্টু। ছোট বেলা থেকে সন্ত্রাসী টাইপের ওবায়দুল হক সেন্টু। এলাকায় নানাবিধ অপকর্মের সঙ্গে সম্পূক্ত এই সেন্টু। নগরীর চাদমারীতে সাইফুল ট্রেডার্স নামে তার একটি কাঠের দোকান রয়েছে। গাছের ব্যাবসায়ের আড়ালে তিনি মাদক ব্যাবসায়ের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। অনেক সময় তার দোকানেও ফেন্সিডিলের চালান রাখা হয়। অত্যান্ত কৌশুলী বুদ্ধিতে তিনি ফেন্সিডিলের ব্যাবসা করে আসছেন। তার এসব অপকর্মের কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে কৌশলে ফাঁসিয়ে দেন চতুর সেন্টু।

এদিকে সেন্টু নিজের পরিবারের সদস্যদের চলাফেরার জন্য বড় ভাইয়ের সম্পত্তির উপর দিয়ে জোরপূর্বক রাস্তা নির্মান করে আসছে। এজন্য সেন্টু ভাড়ায় সন্ত্রাসী নিয়ে বড় ভাইয়ের প্রায় ৫০ হাজার টাকার বিভিন্ন প্রজাতির গাছপালা কেটেও ফেলেছে।একই সঙ্গে বড় ভাইয়ের ঘর অন্যত্র সরিয়ে নিতেও ঘর ভেঙ্গেছে। এতে ইউনুছ হাওলাদারের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। অর্থনৈতিক এরকম ক্ষতি সাধনে তার পরিবারের সদস্যরা কান্নাকাটি করছে। সেন্টুর দখল সন্ত্রাসে বড় ভাই বাধা প্রদান করলে তাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়। হত্যার চেষ্টায় ধাড়ালো অস্ত্র নিয়ে বড় ভাইকে কোপানের চেষ্টা করে।ওই সময়ে প্রতিবেশীরা ধরে ফেলায় অল্পের জন্য প্রানে রক্ষা পেয়েছেন বড় ভাই ইউনুছ। পরবর্তীতে এ ব্যাপারে নামকাওয়াস্তে শালিস বৈঠক হলেও ইউনুছ হাওলাদারের কোন ক্ষতি পুরন দেয়া হয়নি। বরং এখনও তার পরিবারকে দেখিয়ে দেবার হুমকী দিয়ে আসছে। অমার্জিত ভাষায় গালাগাল করছে সেন্টুর বখাটে পুত্র ফাইজুল ও সাইফুল। ইউনুছ আলী হাওলাদারের কন্যাদের অশ্লীল ভাষায় গালাগালও করে আসছে। মাদক ব্যাবসায়ী ওবায়দ্লু হক সেন্টুর অন্যায় অকর্মের শেল্টার দিচ্ছেন স্থানীয় মেম্বর দুলাল হোসেন। ঘটনাটি নলছিটি থানা পুলিশকে অবহিত করা হয়েছে। মঙ্গলবার ইউনুছ আলী হাওলাদার বাদী হয়ে ছোট ভাইয়ের বিরুদ্ধে থানায় একটি সাধারন ডায়রীও করেছেন। ছোট ভাইয়ের তান্ডবের বিষয়টি বরিশাল র‌্যাব-৮কেও অবহিত করা হয়েছে।ডায়রী করার আগের দিন কৌশলে ক্ষতিপূরন দেয়ার কথা বলে ইউনুছ হাওলাদারকে সেন্টু ডেকে নিয়ে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেয়।

এ প্রসঙ্গে ইউনুছ আলী হাওলাদার বলেন তিনি পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এখন জীবনের চরম নিরাপত্তাহীনতায় বসবাস করছেন। ওবায়দুল হক সেন্টু জানিয়েছেন তিনি কারো সম্পত্তির উপর দিয়ে রাস্তা নির্মান করছেন না। তার নিজের সম্পত্তির উপর দিয়ে রাস্তা নির্মান করছেন বলে দাবী করেন। নলছিটি থানার ওসি এসএম আজিজুল হক বলেন ঘটনাটি তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন

Back to top button
Translate »