আর্কাইভ

সাংসদদের বিনাশুল্কে

পেট আর পকেট বলে দু’টা জিনিষ আছে, এগুলোর সেবা না করতে পারলে কিসের সংসদ আর কিসের এমপিগীরি! ক্ষমতাসীন দলও বুঝে এই হাহাকার, কারণ তারাও এ পথ মাড়িয়েছে খুব করুনভাবে। সমস্যা হচ্ছে, সংসদে ক্ষমতাওয়লা আর ক্ষমতাহারা দুই দলকে না দেখলে উপরওয়ালা গুরুরা গোস্বা করেন, টাকা-পয়সা দিতে টালবাহানা করেন। তাই নেহাত না আনলেই নয় এমন একটা তাগাদা হতেই ক্ষমতাওয়ালারা চেষ্টা করছেন প্রতিপক্ষকে সংসদে ফেরাতে। সামনে সাড়িতে আসন অফার করেও কাজ হচ্ছেনা (চান্দুদের চেহারা না দেখলে ম্যাংগো পিপলদের নাওয়া খাওয়া বন্ধ হয়ে যাবে আরকি!), ঘন ঘন অনুনয় বিনয়েও বরফ গলছেনা। তেতো মুখের মানুষেরা বলছে অন্য কথা, এদের ফিরিয়ে আনার জন্যেই নাকি সাংসদ্‌দের সামনে বিনা শুল্কে গাড়ি আমদানীর টোপ ফেলা হয়েছে। ক্ষুধার্ত কুকুরের সামনে মাংসের টুকরা ঝুলালে যে গতিতে দৌঁড়ে আসার কথা, একই গতিতে ক্ষমতাহারা সাংসদরাও গাড়ির জন্যে দৌঁড়ে আসবেন এমনটাই আশা করছেন ক্ষমতাওয়ালারা। মনে হচ্ছে কাজ দিয়েছে এই টোপে, সংবাদ মাধ্যমে খবর বেরিয়েছে গণতন্ত্রের ‘সূর্য্যসন্তান’ সর্বজনাব সাকা চৌধুরী ইতিমধ্যে ঘোষনা দিয়েছেন, ‘মোকাবেলার জন্যে তৈরী থাকবেন, আমরা আসছি’ (আসলে মোকাবেলা নয়, হবে ভাগাভাগি)। ৪০০ কোটি টাকা ভর্তুকি দিয়ে সোনার সন্তানদের জন্যে গাড়ি ব্যবস্থা হচ্ছে, ম্যাংগো পিপলদের এ নিয়ে কেন মাথা ব্যথা তা নন-ম্যংগোদের বোধগম্য হওয়ার কথা নয়। শুধু ৪০০ কোটি কেন, পূরো দেশটাই যদি সাংসদরা নিজদের ভেতর ভাগাভাগি করে জাতিকে অনিশ্চয়তার হাত হতে রেহাই দেন কেউ বাধ সাধবে বলে মনে হয়না। ম্যাংগো পিপলদের সময়মত ম্যাংগো সাপ্লাই দিলেই তারা খুশি। তাদের কাছে নেংড়া-ফজলী হিসাবই আসল হিসাব, ৪০০ কোটির হিসাব অনেকটা দিল্লীকা লাড্ডু হিসাবের মত।

কোটি টাকা শ্রাদ্ব করে নির্বাচনী বৈতরনী পার হয়ে যারা সংসদে আসেন ব্যবহারের জন্যে উনাদের গাড়ি থাকেনা, এমন একটা তথ্য ম্যাংগো পিপলদের বেওয়ারিশ কুকুরদেরও বিশ্বাষ করতে কষ্ট হবে। এমন কাউকে পাওয়া গেলে গুলিস্তান চত্ত্বরে মুর্তি বানিয়ে রাখলে অবশ্য মন্দ হয়না (ভবিষত প্রজন্মের জন্যে যাদুঘরীয় সম্পদ)। ম্যাংগো গণনার হালির মতই হিসাব করলে দেখা যাবে প্রায় ১০০ হালি সাংসদ শুল্ক বিহীন গাড়ি আমদানীর সূযোগ নেবে। সরকারী হিসাবেই এতে ৪০০ কোটি টাকা ভর্তুকী যাবে। খরচের এখানেই শেষ নয়, গাড়ি প্রতি মাসে ৪০ হাজার টাকা দেয়া হবে আনুসাংগিক খরচ হিসাবে। ৪০০ x ৪০,০০০! ১কোটি ৬০ লাখ টাকা মাসে। এ আর এমন কি অংক? নেত্রী বন্দনার কাজে গ্রামে গঞ্জে চষে বেড়াতে এ সবের প্রয়োজন আছে নিশ্চয়!

এই গাড়ি গাড়ি খেলায় সাংসদদের কম খেসারত দিতে হয়নি বিদায়ী তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে। তদন্তে বের হয়ে এসেছে গণতন্ত্রের এই মহাসেনারা শুল্কহীন গাড়ি আমদানীর পর তা মোটা অংকের লাভে বিক্রী করে দেন ডিলারদের কাছে। কারণ এই ডিলাররাই যে আমদানী পূঁজির যোগানদাতা! অনেকে আবার হজম করতে না পেরে ময়লা আবর্জনা ফেলার মত গাড়িও ফেলে দিয়েছিলেন ঢাকার রাজপথে। ঢাকা শহর এমনিতেই ধুঁকছে অপরিকল্পিত যানবাহন চলাচলে, অতিরিক্ত ৪০০ গাড়ি এই অব্যবস্থায় নতুন ঝামেলা যোগ করবে তাতে বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই। তাই সরকার মহাশয় যদি সাংসদ্‌দের বিনাশুল্কে হেলিকপ্টার আনার ব্যবস্থা করে দিতেন তাহলে আমার মত কোটি কোটি ম্যাংগো পিপল কিছুটা হলেও ট্রাফিক হাংগামা হতে রেহাই পেত। আশাকরি হেলিকপ্টার কেনার মত যৎ সামন্য কিছু টাকা সাংসদদের হাড়ি-পাতিল নাড়া দিলেই বেরিয়ে আসবে।

লেখাটিঃ আমি বাংলাদেশী থেকে সংগৃহীত

আরও পড়ুন

Back to top button
Translate »