আর্কাইভ

আইনজীবী গ্রেপ্তার সরকারের ষড়যন্ত্রেরই অংশ- বিএনপি

সরকারের পরিকল্পিত ‘ষড়যন্ত্র’বলে অভিযোগ করে অবিলম্বে দলীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সৈয়দা আসিফা আশরাফী পাপিয়া, গাজী তৌহিদুল ইসলাম ও আবু বকর সিদ্দিক রাজনের মুক্তি দাবি করেছে বিএনপি।

আজ শুক্রবার দুপুরে নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান এই দাবি জানান।

নজরুল বলেন, আইনের পাদপিঠে ক্রমাগত বেআইনি কার্যক্রম চলছে। গত কয়েকদিন ধরে আদালত প্রাঙ্গনে সংঘটিত ঘটনা প্রবাহ সরকারের পরিকল্পিত ষড়যন্ত্রের অংশ বিশেষ। তারা আদালতের মাধ্যমে নিজেদের গণবিরোধী এজেন্ডা বাস্তবায়ন করার কার্যক্রম জোরদার করেছে। এর ফলে দেশে গনতন্ত্র, আইনের শাসন ও ন্যায় বিচার ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। গ্রেপ্তারকৃত তিন আইনজীবিকে শাহবাগ থানা থেকে ক্যান্টনমেন্ট থানায় নিয়ে যাওয়ার ব্যাখ্যা দাবি করে নজরুল ইসলাম খান বলেন, তিন আইনজীবীর নামে শাহবাগ থানায় মামলা করা হয়েছে। অথচ তাদের রাতে ক্যান্টনমেন্ট থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এটা রহস্যজনক।

তিনি জানান, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতির কক্ষে সমিতির সদস্য অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী অবরুদ্ধ হয়ে আছেন। তিনি বেরুলেই পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করবে। উচ্চ আদালত ভবনে এ ধরণের পরিস্থিতি নজীরবিহীন বলে মন্তব্য করেন নজরুল ইসলাম খান।

তিনি বলেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের অগ্নিমূল্য, খাবার পানির চরম অভাব, বিদ্যুৎ-গ্যাসের তীব্র সঙ্কটে মানুষের নাভিশ্বাস ওঠেছে। ঠিক এ সময়ে জনগনের দৃষ্টি অন্যদিকে সরিয়ে নিতে হাইকোর্ট প্রাঙ্গণে গত কয়েকদিন যেসব ঘটনা ঘটেছে, তা সরকারের সেই অপকৌশলেরই অংশ।

গ্রেপ্তারকৃত আইনজীবীদের সঙ্গে তাদের আইনজীবীকে দেখা করতে দেয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেন নজরুল ইসলাম খান তাদের মুক্তির দাবির পাশাপাশি তাদের বিরুদ্ধে আনীত মামলা প্রত্যাহার এবং বিচারকদের দলীয় আনুগত্য প্রমাণের প্রতিযোগিতা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান।

সংবাদ ব্রিফিংয়ে দলের যুগ্ম মহাসচিব রহুল কবির রিজভী, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক রহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবির খোকন, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাসুদ আহমেদ তালুকদার, গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সানাউল্লাহ মিয়া, যুব দলের সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেল, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন

Back to top button