আর্কাইভ

আমতলীর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নেটবুক এখন বাসায়

আহমেদ জালাল, বরিশাল ॥ বরগুনার আমতলী উপজেলার মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ৪ শতাধীক নেটবুক দেয়া হয়েছে। এ নেটবুকগুলো শিক্ষার্থীদের  শিক্ষা Netbookশিখনের পরিবর্তে শিক্ষক, কর্মচারী ও ম্যানেজিং কমিটির লোকজন বাসায় বাসায় নিয়ে ব্যাক্তিগত কাজে ব্যবহার করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে সরকারের নির্বাচনী অঙ্গীকার বাস্তবায়নে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রনালয় শিক্ষার্থীদের নেটবুকের মাধ্যমে শিক্ষা-শিখনের মহৎ উদ্যোগ গ্রহন করে। এ উদ্যোগ বাস্তবায়নে জন্য বরগুনার আমতলীতে  ৪২টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসায় ৪’শ নেটবুক দেয়া হয়েছে।
 
 ৪/৫ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রশিক্ষন প্রাপ্ত শিক্ষক থাকলেও বাকী গুলোতে নেই।  এর মধ্যে আমতলী একে পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ২৪টি, এম ইউ বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় ২৩টি, গোছখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৯টি, তারিকাটা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ১০টি, তালতলী ছালেহিয়া দাখিল  মাদ্রাসায় ১২টি, ছোটভাইজোড়া দাখিল মাদ্রাসায় ১২টি, বেহালা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ১২টি, পিকে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ১৪টি, লোচা নিম্ব মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ১০টি, আড়পাংগাশিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় ১০টি, কমডেকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৭টি ,লাউপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ২৬টি ও কড়াইবাড়িয়া দাখিল মাদ্রাসায় ৭টি দেয়া হয়েছে । নেটবুকগুলো স্কুলের শিক্ষকসহ ম্যানেজিং কমিটির বাসা বাড়ীতে নিজেদের ছেলে-মেয়েদের হাতে শোভা পাচ্ছে।

এছাড়া সম্প্রতি লাউপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে রহস্য জনক চুরি সংঘটিত হয়েছে। চোরেরা আলমীরা ভেঙ্গে ২৬টি নেটবুকের মধ্যে মাত্র ৩টি চুরি করে নিয়ে গেছে বলে স্কুল কতৃপক্ষ তালতলী থানায় সাধারন ডায়েরী করেছে। চুরির ঘটনা রহস্যজনক বলে জনগনের মাঝে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

তালতলীর শিক্ষক ইউসুব মিয়া জানান লাউপাড়ার চুরির ঘটনা প্রমান করে অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেটবুক থাকে না। ধামাচাপা দেওয়ার জন্য চুরির নাটক সাজিয়েছে। আমতলী উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীর কবির বলেন সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার বাঁধা গ্রস্থ করতে একটি মহল চক্রান্ত  করছে। এ কারনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্র- ছাত্রীদের নেটবুকে শিক্ষার পরিবর্তে মহলটি বাসায় নিয়ে ব্যাক্তিগত কাজে ব্যবহার করছে। এ ব্যাপারে আমতলী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার গোলাম মোস্তফার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন

Back to top button
Translate »