আর্কাইভ

বরিশালের মেঘনা নদীতে ট্যাঙ্কার ডুবি – ঘটনাস্থলে বিআইডব্লিউটি’র চেয়ারম্যান – রুস্তুম ও হামজা দিয়ে উদ্ধার করা হবে নিমজ্জিত ট্যাঙ্কার

নিজস্ব সংবাদদাতা ॥ বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জের মেঘনা নদীতে ডুবে যাওয়া তেলবাহী ট্যাঙ্কার এম.টি মেহেরজান উদ্ধার কাজ পরিদর্শন করতে শনিবার দুপুরে ঘটনাস্থলে ছুটে এসেছেন বিআইডব্লিউটি’র চেয়ারম্যান অতিরিক্ত আইজিপি ড. সামসুদ্দোহা খন্দকার।

তিনি ঢাকা থেকে সড়ক পথে বরিশাল পৌঁছে বিআইডব্লিউটি’র জাহাজ তিতাসযোগে বেলা এগারোটায় দুর্ঘটনাস্থল বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জের মেঘনা নদীর গোবিন্দপুরের কালিগঞ্জ এলাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ট্যাঙ্কার ডুবির স্থান চিহ্নিত করা হয়েছে। আমাদের উদ্ধারকারী জাহাজ হামজা ঘটনাস্থলে আছে। এরসাথে উদ্ধারকারী জাহাজ রুস্তুম মিলে নিমজ্জিত ট্যাঙ্কার উদ্ধার করা হবে। তিনি আরো বলেন, এরচেয়ে ভাড়ি জাহাজ শরীয়তপুরে নিমজ্জিত হয়েছিল। সেই জাহাজ উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে বিআইডব্লিউটি’র উদ্ধারকারী জাহাজ দিয়েই। সেক্ষেত্রে বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জের মেঘনা নদীতে ডুবে যাওয়া তেলবাহী ট্যাঙ্কারটিও উদ্ধার করা সম্ভব হবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

বিআইডব্লিউটিসি’র বরিশাল অঞ্চলের উপ-পরিচালক হাফিজুর রহমান জানান, এম.টি মেহেরজান নামের তেলবাহী ট্যাংকারটি চট্টগ্রাম থেকে ৭ লাখ লিটার পেট্রোল ও ডিজেল নিয়ে তেল বিপণনকারী সংস্থা যমুনার বরিশাল ডিপোর উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। পথিমথ্যে গত ২৫ জুলাই রাত সাড়ে নয়টার দিকে বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার মেঘনা নদীর গোবিন্দপুরের কালিগঞ্জ এলাকায় তেলবাহী ট্যাঙ্কারটি পৌঁছলে বিপরীতদিক থেকে আসা পন্যবাহী কার্গো এম.ভি ফজলুল হক-৩ এর ধাক্কায় তেলবাহী ট্যাঙ্কারটি মাঝ নদীর প্রায় দেড়শ ফুট পানির নিচে নিমজ্জিত হয়ে নিজাম উদ্দিন (৪৫) নামের এক নার্বিক নিখোঁজ হয়। নিখোঁজ নিজাম উদ্দিনের আজো কোন সন্ধ্যান মেলেনি।

মেহেন্দিগঞ্জ থানার ওসি রিয়াজ হোসেন জানান, দূর্ঘটনার পর গত তিনদিন ধরে নদীর বিভিন্ন এলাকায় তল্ল¬াশী চালিয়েও নিখোঁজ নিজাম উদ্দিনের কোন সন্ধ্যান পাওয়া যায়নি। তিনি আরো জানান, দূর্ঘটনার পরপরই ফজলুল হক-৩ নামের কার্গোটি ফেলে মাস্টার ও সুকানিরা পালিয়ে গেছে। বর্তমানে নিমজ্জিত তেলবাহী ট্যাঙ্কার এম.টি মেহেরজানের কর্মীরা ওই কার্গোতে অবস্থান করছেন। সেখানে থানার পক্ষ থেকে দু’জন পুলিশ সদস্যকে নিরাপত্তার জন্য রাখা হয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

আরও পড়ুন

Back to top button
Translate »