আর্কাইভ

মুক্তিযোদ্ধার অপহৃতা কন্যাকে সাত দিনেও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ

নিজস্ব সংবাদদাতা ॥ বরিশালের আগৈলঝাড়ায় যুবলীগ নেতার ভাতিজার জন্য অন্যর এক মুক্তিযোদ্ধার বিবাহিতা মেয়েকে অপহরণের করেছেন যুবলীগ নেতা। থানায় মামলা দায়ের। মামলা প্রত্যাহারের জন্য প্রভাবশালী ওই নেতার পক্ষ থেকে বাদীকে বিভিন্ন হুমকী-ধামকি দেয়ারও অভিযোগ করেছেন বাদি।

এজাহার সূত্রে জানাগেছে, উপজেলা বাগধা ইউনিয়নের আমবৌলা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আ. মজিদ তাজের মেয়ে ফাতেমা আক্তার সুখীর সাথে উজিরপুর উপজেলার সাতলা গ্রামের হাকিম বিশ্বাসের সাথে ১ বছর পূর্বে বিয়ে হয়। সম্প্রতি ফাতেমা তার বাবার বাড়ি এসে পার্শ্ববর্তী একটি ধর্মীয় অনুষ্ঠানে যায়। অনুষ্ঠানস্থল থেকে উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ শিকদারের নেতৃত্বে তার চাচাত ভাই উপজেলার পয়সারহাট গ্রামের মো. মনির শিকদারের ছেলে সাইফুল ইসলাম শিকদারের জন্য হাকিম বিশ্বাসের স্ত্রী ফাতেমাকে অপহরণ করে। এসময় একই গ্রামের হেমায়েত শিকদার, ইসমাইল শিকদারের ছেলে শিপন শিকদার তাতের সহযোগিতা করে। এঘটনায় ফাতেমা আক্তারের স্বামী কবির বিশ্বাস বাদী হয়ে আগৈলঝাড়া মামলায় দায়ের করেণ,যার নং-১০ (২৫/০৩/১৩)। মামলার দায়েরের পর প্রভাবশালীরা ফাতেমার বাবা মুক্তিযোদ্ধা আ. মজিদ তাজ ও বাদী কবির বিশ্বাসকে মামলা প্রত্যাহারের জন্য বিভিন্ন ধরণের হুমকী ধামকি দিয়ে আসছে বলে তারা জানান।

জানাগেছে, ফাতেমাকে বিভিন্ন সময়ে কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিল সাইফুল। তাতে সুখি রাজি না হওয়ায় সাইফুল তার সহযোগিদের নিয়ে এ অপহরণের ঘটনায় ঘটায় বলে জানিয়েছেন ফাতেমার স্বামী মো. কবির বিশ্বাস।  অপহরণের ৭ দিনেও অপহৃতাকে উদ্ধার করতে পারেনি আগৈলঝাড়া থানা পুলিশ। মামলার আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও অজ্ঞাত কারণে তাদের গ্রেফতার করছেনা বলে বাদি অভিযোগ করেন। মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা পুলিশের উপ পরিদর্শক আক্কাস আলী বাদির অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে বলেন, ভিকটিম উদ্ধার ও আসামীদের গ্রেফতারের জন্য চেষ্টা চলছে।

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন

Back to top button
Translate »