আর্কাইভ

বাকেরগঞ্জে সালিশ বৈঠকে হামলা ও ভাংচুর

দানিসুর রহমান লিমন, বাকেরগঞ্জ ॥  বাকেরগঞ্জের দাঁড়িয়ালে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সালিশ-বৈঠককে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় তিন জন আহত হয়েছে।

আহতরা হলেন মকবুল সরদার (৬০), পুত্র কামাল সরদার (৩০) ও জামাল সরদার (২২)। আহতরা বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এ ঘটনায় পুলিশ চার জনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হলো নান্টু সিকদার (৪০), সিরাজ সিকদার (৩৫)।

সুত্রে জানা যায়, উপজেলার দাঁড়িয়াল গ্রামের ইব্রাহিম হাওলাদরদের সাথে একই গ্রামের মকবুল সরদারদের দীর্ঘদিন ধরে জমি-জমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিলো। এনিয়ে গত এক মাস পূর্বে ইব্রাহিম হাওলাদার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সহিদুল ইসলাম হাওলাদারের নিকট লিখিত অভিযোগ দেয়। এ বিষয়ে সালিশ-মীমাংসা করার জন্য ইউপি চেয়ারম্যান সহিদ হাওলাদার আব্দুর রাজ্জাক মাষ্টার ও মোতাহার মাষ্টারসহ ৫জনকে দায়িত্ব দেয়। তারা উভয় পক্ষকে নিয়ে একাধিকবার বৈঠকে বসলেও দুই পক্ষই কাগজ-পত্র দেখানোর জন্য সময় নেয়। গত শনিবার সকাল ১১টায় এনিয়ে দাঁড়িয়াল ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান সহিদ হাওলাদার ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে সালিশ-বৈঠক বসে। প্রথমে বাদী ইব্রাহিম হাওলাদার ও লোকজন তাদের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন। পরে বিবাদী মকবুল সরদার তার কাগজ-পত্র দেখিয়ে কথা বলতে গেলেই বাদী ইব্রাহিমের ও তার ভাড়াটে লোকজন তার ওপর চড়াও হয় এবং হামলা চালায়।

এতে বিবাদী মকবুল সরদারসহ ৪জন গুরুতর আহত হয়। হামলাকারীরা এসময় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ার-টেবিলও ভাংচুর করে। খবর পেয়ে থানা অফিসার ইনচার্জ নূরুল ইসলাম-পিপিএম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং হামলার সাথে জড়িত ৪জনকে গ্রেফতার করেন।

ইউপি চেয়ারম্যান সহিদুল ইসলাম হাওলাদার এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আহত ৩জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

আরও পড়ুন

Back to top button
Translate »