গৌরনদী সংবাদ

গৌরনদীতে দু’ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় মামলা দায়ের

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার বার্থী কলেজের প্রভাষক কর্তৃক এক ছাত্রীকে ও আগৈলঝাড়ার উত্তর শিহিপাশা গ্রামে তৃতীয় শ্রেনীতে পড়ুয়া এক ছাত্রীকে বৃদ্ধ কর্তৃক ধর্ষণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় পৃথকভাবে মামলা দায়েরের পর পুলিশ মঙ্গলবার রাতে ইয়াকুব আলী সরদার (৬০) নামের এক ধর্ষককে গ্রেপ্তার করেছে। বুধবার দুপুরে গ্রেপ্তারকৃতকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।

 

মামলার অভিযোগ সুত্রে ও নির্যাতিতা কলেজ ছাত্রীর পরিবারিক সুত্রে জানা গেছে, বার্থী ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক এমডি জাকারিয়া হোসেন মিলনের কাছে কম্পিউটার বিষয়ে প্রাইভেট পরতো অন্যান্যদের সাথে সুন্দরদী গাউছিয়া আবেদ্দীয়া সুন্নিয়া আলিম মাদ্রাসার ওই ছাত্রী। মাঝে ৩ থেকে ৪ দিন প্রাইভেট পড়তে যেতে পারেনি ওই ছাত্রী। পরবর্তীতে প্রভাষক মিলন মুঠোফোনে জানান, গত ৩/৪ দিনে পরা যা পিছিয়ে পরেছো তা তার বাসায় আসলে ঐ পড়া দেখিয়ে দেবে বলে তার বাসায় যেতে বলে। শিক্ষকের কথা অনুযায়ী গত বছরেরে ১৬ ডিসেম্বর সকালে ওই ছাত্রী মিলনের বাসায় যায়। বাসায় গিয়ে দেখে ওই বাসায় শিক্ষক মিলন ছাড়া আর কেউ নেই। এ সময় ছাত্রীকে কৌশলে ঘুমের ওষধ মিশানো এক গ্লাস জুস খাওয়ায় মিলন। ছাত্রী জুস খাওয়ার পর পর ঘুমের নেশা চলে আসে এবং দুর্বল হয়ে পরে। এক পর্যায়ে শিক্ষক মিলন ঘরের দরজা জানালা বন্দ করে বিভিন্ন ভয় ভিতি দেখিয়ে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করে। ধর্ষনের পর তাকে বিয়ের প্রলভন দেখিয়ে বিভিন্ন ভাবে তাকে আস্বস্ত করে যেন এ ঘটনা কাউকে না বলে। পরবর্তীতে ওই ছাত্রী অন্তসত্বা হয়ে পরে। পরবর্তীতে গত ১৫ এপ্রিল বিয়ের কথা বলে অন্যত্র নিয়ে গর্ভের বাচ্চা নষ্ট করে। এ সময় ছাত্রীটি অসুস্থ্য হয়ে পরলে বিষয়টি ছাত্রীর পরিবারের মধ্যে জানাজানি হয়। পরবর্তীতে এ নিয়ে শিক্ষক মিলনের বাসায় সালিস বৈঠক বসলে ছাত্রীকে বিবাহ করতে অস্বীকার করে কলেজ শিক্ষক মিলন। গৌরনদী ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা মো. সাজ্জাদ হোসেন আদালত থেকে মামলা পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, আদালতের নিদের্শ মতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

অন্যদিকে আগৈলঝাড়া থানার এস.আই আক্কাস আলী জানান, উপজেলার উত্তর শিহিপাশা গ্রামের ওয়াজেদ সরদারের পুত্র ইয়াকুব আলী সরদার (৬০) মঙ্গলবার বিকেলে পাশ্ববর্তী বাড়ির এক দিনমজুরের তৃতীয় শ্রেনীতে পড়ুয়া কন্যাকে নির্জন পুকুর পাড়ে একাকি পেয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় ধর্ষিতার স্বজনেরা শিশুটিকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা করান। এ ঘটনায় ওইদিন রাতেই ধর্ষিতা শিশুর পিতা থানায় মামলা দায়ের করার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে রাত সাড়ে বারোটার দিকে ধর্ষক ইয়াকুবকে গ্রেপ্তার করে। ধর্ষিতা শিশুটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য বরিশাল শেরে-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...

Leave a Reply