আর্কাইভ

বরিশাল জেলার মুলাদীতে প্রথম একুরিয়ামে মৎস্য চাষ

শুভব্রত দত্ত, বরিশালঃ বরিশাল জেলার মধ্যে এই প্রথম একুরিয়ামের মৎস্য চাষ হচ্ছে মুলাদী উপজেলার কাজিরচর ইউনিয়নের কমিশনারচর সংলগ্ন আড়িয়াল খা মরা নদে।

এ ব্যাপারে মৎস্য চাষী বাবুল খান জানান প্রথমে তিনি খাঁচায় মৎস্য চাষ করে আলোড়ন সৃষ্টি করে এবং ব্যাপক সাড়া জাগায় উপজেলা মৎস্য চাষীদের মাঝে। ৫টি হাপা নিয়ে কাজ শুরু করেন। বর্তমানে এর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬০টি। মুলাদী উপজেলা ছাড়াও বরিশাল জেলার বিভিন্ন উপজেলার মৎস্য চাষীরা এখান থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে খাচায় মৎস্য চাষ শুরু করেছে বলে বাবুল খান জানান ।

বৈশাখ থেকে আষাঢ় পর্যন্ত মাছের পোনা চাষ করা হয়। ৭ থেকে ৯ মাসের মধ্যে তেলাপিয়া মাছ ১ কেজি থেকে ১ কেজি ২৫০ গ্রাম ওজনের হয়ে থাকে। প্রতি কেজি বিক্রি হয় ১৫০ টাকায়। প্রতিদিন গড়ে ৫মন মাছ বিক্রি করে থাকেন। এ মাছ বরিশাল জেলার উজিরপুর, শিকারপুর, বাটাজোড়, গৌরনদী, আগুরপুর, সরিকল ও বাবুগঞ্জসহ বিভিন্ন অঞ্চলে বিক্রি হচ্ছে।

মাছ চাষ করার জন্য ৬ থেকে ৮ ফুট পানির গভীরতাসহ জোয়ার ভাটার পানির প্রয়োজন। প্রতিটি হাপা পাশে ১০ ফিট ও লম্বা ২০ফিট। খাবার বাহির থেকে সরবরাহ করতে হয়। এ বছর থেকে মৎস্য চাষে নতুন করে সংযোজন করেছেন একুরিয়ামের মৎস্য চাষ। মৎস্য চাষী কাঞ্চন ও খোকন মাঝি জানান একুরিয়ামে মৎস্য চাষে ব্যাপক খরচ হয়। বরিশাল জেলার মধ্যে এই প্রথম বাণিজ্যিকভাবে আমরাই শুরু করেছি। রেড কাপ, ব্লাক মোড়, কমেট ও মলি প্রজাতির ২০ হাজার মাছের পোনা প্রায় ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকায় ক্রয় করে চাষ শুরু করেন। এ মাছগুলো আগামী ২০১২ সালের ফেব্র“য়ারী মাস থেকে বিক্রি শুরু হবে। প্রতিটি মাছ বিক্রি করা হবে ১শত টাকায়। এতে তারা ব্যাপক লাভবান হবে বলে জানান।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা বায়েজিত আলম ও সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা জসিম জানান, উপজেলায় ৩টি বড় নদী আড়িয়াল খা, জয়েন্তী ও নয়া ভাঙ্গলী রয়েছে। এ ৩টি নদীর অনেক বাঁক ও প্রশাখা রয়েছে। অনায়াসে সেখানে খাঁচায় মৎস্য চাষ করে অধিক লাভবান হওয়া যায়। উপজেলার অধিকাংশ খালগুলোতে নৌ চলাচল করতে পারে না কিন্তু জোয়ার ভাটার পানি ওঠানামা করে। উক্ত জলাশয়ে আধুনিক মাছ চাষ করলে প্রায় ৩৪০ মেট্রিক টন মাছ উৎপাদন হতে পারে। বর্তমানে ১২৫ মেট্রিক টন মাছ উৎপাদন হচ্ছে।

উদ্যোক্তা বাবুল খান বলেন, সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের সার্বিক সহযোগিতা পাওয়া গেলে মুলাদী উপজেলাকে অর্থনৈতিক দিক দিয়ে শক্তিশালী করা সম্ভব এবং সরকারের হাজার হাজার টাকা রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পাবে।

আরও পড়ুন

Back to top button
Translate »