আর্কাইভ

পর্যটকের পদভারে মুখরিত পর্যটন নগরী কুয়াকাটা

নিজস্ব সংবাদদাতা ॥ পর্যটন নগরী সাগর কন্যা কুয়াকাটা অগনিত পর্যটকের পদভারে এখন মুখরিত। অগ্রহায়নের শুরুতে শীত যেমন জেঁকে বসতে শুরু করেছে তেমনি দেশী-বিদেশী পর্যটকদের আগমনে মুখরিত হয়ে উঠতে শুরু করছে কুয়াকাটা পর্যটন সৈকতের সকল স্পট। পর্যটন স্পটগুলোতে গমন উপযোগী যানবাহন এবং রাস্তাঘাটেও লেগেছে রঙের ছোঁয়া । কুয়াকাটার আকর্ষনীয় সমুদ্র সৈকত, সূর্যোদয়-সূর্যাস্তের দৃশ্য, কুয়াকাটা ইকোপার্ক, গঙ্গামতির লেক, গঙ্গামতির ম্যানগ্রোভ ফরেষ্ট, রাখাইন মহিলা মার্কেট, ছায়া ঘেরা নারিকেল কুঞ্জ, লেম্বুর চরের শুঁটকি পল্লী, রাখাইন পল্লী, কেরানী পাড়া বৌদ্ধ বিহারের বৌদ্ধ মূর্তি, কুয়াকাটা সংলগ্ন মিশ্রী পাড়ায় অবস্থিত এশিয়ার সর্ব বৃহৎ বৌদ্ধ মূর্তি, সুন্দরবনের পূর্বাঞ্চাল খ্যাত ফাতরার সবুজ বন, ঝাউ বাগান, মৎসবন্দর মহিপুর ও মম্বীপাড়ার সৎ সঙ্গের মন্দিরে এখন অগনিত পর্যটকের পদচারনা।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পর্যটন মৌসুমের শুরুতে ভ্রমনের স্মৃতিময় দিন গুলো আনন্দের সাথে কাটানোর জন্য প্রকৃতি প্রেমি দেশ-বিদেশের পর্যটকরা প্রকৃতির নিবিড় পরশ নিতে কুয়াকাটার খ্যাতনামা সকল আবাসিক হোটেলগুলোতো ইতিমধ্যেই বুকিং দিয়ে রেখেছেন। বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন বেসরকারী খাতে দেয়ার পর পর্যটন হলিডে হোম্স এ বছর সম্পূর্ন নতুন আঙ্গীকে সাজানো হয়েছে। ব্যক্তি মালিকানাধীন নতুন আবাসিক হোটেল গুলোও পর্যটকদেরকে আকৃষ্ট করার জন্য নানা পদক্ষেপ গ্রহন করেছে। কুয়াকাটা ইন্টারন্যাশনাল, বনানী প্যালেস, গোল্ডেন প্যালেস, নীলাঞ্জনা ও স্কাই প্যালেসে এ বছর বেশী পর্যটকের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

কুয়াকাটা ইন্টারন্যাশনালের স্বত্তাধিকারী আকতারুজ্জামান সোহেল এ প্রতিনিধিকে বলেন, প্রাকৃতিক  সৌন্দর্য্য, সাগরের নীল ঢেউ, বালুকারাশি, সূর্যোদয়-সূর্যাস্তের মত লোভনীয় সব স্পট গুলোতে স্বাচ্ছন্দে ঘুরে দেখার জন্য একটি বে-সরকারী সংস্থা নৌযানের প্যাকেজ ট্যুরের ব্যবস্থা রেখেছে । এ ছাড়াও কুয়াকাটার  সৌন্দর্য্যই কুয়াকাটা ভ্রমনের স্মৃতিকে অনেক দিন বাঁচিয়ে রাখবে মননে এবং তা একসময় নিজের অজান্তেই নিজেকে প্রকৃতির কাছে টেনে আনবে।

কুয়াকাটা নৌ-পুলিশ ইন-চার্জ এস, আই মো: মনির জানান, কুয়াকাটায় পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য পুলিশী টহল জোরদার করা হয়েছে। যেকোন পরিস্থিতিতে পর্যটকদের নিরাপত্তা বিধানে পুলিশ সদা প্রস্তুত।

আরও পড়ুন

Back to top button
Translate »