আর্কাইভ

বরিশাল নগরীর উন্নয়নে দেয়া ২’শ ৮ কোটি টাকা বরাদ্ধ এসেছে – শুরু হয়েছে জিরো পয়েন্ট থেকে শাপলা চত্বর পর্যন্ত দুই লেন বিশিষ্ট সড়ক নির্মান কাজ

এম.মিরাজ হোসাইন, বরিশাল ॥ বরিশাল নগরবাসীর কাঙ্খিত আরো একটি স্বপ্নের বাস্তাবায়ন শুরু হয়েছে সোমবার থেকে। প্রায় সারে ৯ কোটি টাকা ব্যয়ে নগরীর আমতলা জিরো পয়েন্ট থেকে লঞ্চঘাট শাপলা চত্বর পর্যন্ত ডিভাইডারসহ দুই লাইনের সড়ক, ড্রেনসহ ফুটপাট নির্মান কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। এদিকে নগরী উন্নয়নের লক্ষ্যে একনেক থেকে অনুমোদন প্রাপ্ত ২’শ ৮ কোটি টাকা বরাদ্ধ নিশ্চিত সংক্রান্ত ছাড়পত্র এসেছে গত সপ্তাহে। তাই আগামী জানুয়ারী মাস থেকেই পুরো দমে এ প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। পাশাপাশি ইতো মধ্যে চলামান আছে হাসপাতাল ও নবগ্রাম রোড সম্প্রসারনসহ ডিবাইডার ও ফুটপাত নির্মাণ কাজ।  

সোমবার সকাল ১০ টায় বরিশাল সিটি মেয়র শওকত হোসেন হিরন প্রায় ৯ কোটি টাকা ব্যয়ে নগরীর আমতলা জিরো পয়েন্ট থেকে লঞ্চঘাট শাপলা চত্বর পর্যন্ত ডিভাইডারসহ দুই লাইনের সড়ক, ড্রেনসহ ফুটপাট নির্মান কাজের উদ্বোধন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিসিসির প্রকৌশলী মোঃ আলতাফ হোসেন, ঠিকাদার এসএম আলমসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিরা। বিশ্ব ব্যাংকের আর্থয়নে বরিশাল সিটি এলাকার উন্নয়নের জন্য বেসরকারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ মিউনিসিপ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফান্ড ও বিসিসির প্রায় সারে ৯ কোটি টাকার দুটি প্যাকেজে এ কাজ সম্পূন্ন হবে। প্রথম প্যাকেজে ৫কোটি ৫০ লাখ টাকা ও ২য় প্যাকেজে ৪ কোটি ৯২ লাখ টাকার কাজ হবে। কাজের মধ্যে রয়েছে বরিশালের লঞ্চঘাটের শাপলা চত্বর থেকে (বান্দ রোডে) আমতলা জিরো পয়েন্ট পর্যন্ত সড়কটি দুই লাইনের প্রতি লাইনের ২০ ফুট চওড়া রাস্তা নির্মান। পাশাপাশি সড়কের দুই পাশে ৫ ফুট চওড়া ফুটপাত ও ৩ ফুট চওড়া ডিভাইডার করা হবে। সাথে নির্মান করা হবে ড্রেন। আগামী জুন মাসের মধ্যে এ কাজ শেষ হবে। এ নির্মান কাজের দায়িত্ব পেয়েছে অরিয়ন ট্রেডিং বিল্ডার্স নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান।

এদিকে নগরী উন্নয়নের লক্ষ্যে একনেক থেকে  অনুমোদন প্রাপ্ত ২’শ ৮ কোটি টাকা বরাদ্ধ নিশ্চিত সংক্রান্ত ছাড়পত্র এসেছে গত সপ্তাহে। ২০৮ কোটি ১৪ লাখ টাকার মধ্যে বরিশাল সিটি কপোরেশনের বধির্ত এলাকাতে উন্নয়ন করার লক্ষ্যে বেশী বরাদ্ধ দেয়া হচ্ছে। প্রায় অর্ধ শত প্যাকেজের অধিনে এ উন্নয়ন কাজ শুরু হবে আগামী মাস থেকে। প্রকল্পগুলোর মধ্যে প্রধান্য দেয়া হবে নগরবাসীর সবচেয়ে বেশী প্রতিক্ষিত শহর রক্ষা বাধ নির্মানকে। প্রায় ৪ কিলোমিটার শহর রক্ষাবাধ নির্মাণ করা হবে। নির্মান ও সংস্কার করা হবে ৪৭টি সড়ক । সড়কের মোট দৌঘ্য হবে প্রায় ৭৫ কিলোমিটার। নগরীর ৭৫টি রাস্তার পাশে ৪৮ কিলোমিটার ড্রেন নির্মান করা হবে। সড়ক গুলো ২২ থেকে ২৬ ফুট প্রস্ত করা হবে। পাশাপাশি পায় ৪ ফুট প্রস্তের ৪৩ কিলোমিটার ফুটপাত নির্মাণ করা হবে। প্রায় ৩৩ কিলোমিটার রাস্তার উপর সড়ক বাতি লাগানো হবে। পাশাপাশি ২টি ব্রিজ নির্মিত হবে এ বরাদ্ধ দিয়ে। এছাড়া নগরীর বিভিন্ন স্থানে ব্রিজ ও কালভাট নির্মাণের লক্ষ্যে আরো ৮৪ কোটি টাকা অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে বরিশাল সিটি কপোরেশন।

অপরদিকে চলামান আছে হাসপাতাল ও নবগ্রাম রোড সম্প্রসারনসহ ডিবাইডার ও ফুটপাত নির্মাণ কাজ। এখানে ৫ কিলোমিটার ফুটপাত, আড়াই কিলোমিটার রোড ডিভাইডার, ১ দশমিক ৫০ কিলোমিটার ড্রেন, ৪টি বক্স কালভাট ও ৫৫০ সেট সড়ক বাতি স্থাপনের কাজ চলচ্ছে বলে বিসিসির প্রকৌশল বিভাগ দাবী করেছে।

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন

Back to top button
Translate »