আর্কাইভ

আগৈলঝাড়ায় বখাটের উত্যক্তে মাদ্রাসায় যাওয়া বন্ধ হলো ৬ষ্ঠ শ্রেণীর এক ছাত্রীর

আগৈলঝাড়া সংবাদদাতা ॥ স্কুলগামী ছাত্রীদের উত্যক্ত করাই নিয়মে পরিণত করে অনেকের পড়ালেখা বন্ধ করে দিয়েছে আগৈলঝাড়া পল্লীর এক কথিত বহিস্ককৃত ছাত্র।

অভিযোগ ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার বাগধা ইউনিয়নের খাজুরিয়া গ্রামের মুজিবুর রহমানের পুত্র ইউসুফ মিয়া (১৭) বাগধা মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণীর ছাত্র ছিল। ছাত্র নামধারী ইউসুফ একাধিকবার স্কুলের ছাত্রীদের উত্যক্তেদের ঘটনায় ২০১১ সনে স্কুল কর্তৃপক্ষ ইউসুফকে স্কুল থেকে বহিস্কার করে। বাগধা মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম ঘটনা সত্যতা স্বীকার করেন।

অপরদিকে খাজুরিয়া গ্রামের দিনমজুর নিজাম উদ্দিন মিয়ার কন্যা খাজুরিয়া মহিলা মাদ্রাসার ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রীকে (১৩) বখাটে ইউসুফ বেশ কিছু দিন থেকে নানা ধরনের কু-প্রস্তাব দেয়। বখাটে ইউসুফের প্রস্তাবে ওই ছাত্রী সারা না দেয়ায় তাকে পথে ঘাটে দেখে নেয়ার হুমকি দেয়। সম্প্রতি ওই ছাত্রী মাদ্রাসায় যাওয়ার পথে বখাটে ইউসুফ তার বোরখা কেটে ফেলে। এঘটনারও সত্যতা স্বীকার করেন মাদ্রাসা সুপার হাকিম মিয়া। ওই ছাত্রীর পিতা নিজাম উদ্দিন এলাকায় গন্যমান্যদের নিকট বিচার দিলে তাদের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে সদম্ভে অপকর্ম করে পার পেয়ে যাচ্ছে ইউসুফ। বখাটে ইউসুফ তার প্রভাবশালী পরিবার ও সহযোগীদের অব্যাহত হুমকি ভয়ভীতির কারনে ছাত্রীর পিতা নিজাম উদ্দিন গত ৫ জানুয়ারি আগৈলঝাড়া থানার সাধারণ ডায়রী নং-১৬৫ দায়ের করেন।

অভিযুক্ত ইউসুফের পিতা মুজিবুর রহমান ওরফে লাল মিয়া তার গুনধর পুত্রের এ ঘটনার সাফাই করে বলেন, আমার ছেলে এমন কি করছে আপনারা যা পারেন তা লেখেন। সরেজমিন খাজুরিয়া গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য কাদের মিয়া, নজরুল ইসলাম, সান্টু মিয়া, খাদিজা বেগম, মোকলেচুর রহমানসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। বাগধা ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম বাবুল ভাট্টি এ বিষয়ে জানান, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সমন্বয়ে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন

Back to top button
Translate »