আর্কাইভ

বিএনপির সাবেক এমপি স্বপন দু’ঘন্টা অবরুদ্ধ – আ’লীগের বিক্ষোভ ও বিএনপির ঝাড়ু মিছিল – হামলা চালিয়ে গাড়ি ভাংচুর ১৫ নেতা-কর্মী আহত – উত্তেজনা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ২০০১ সনের নির্বাচনোত্তর সংখ্যালঘু নির্যাতনের দায়ে অভিযুক্ত বরিশাল-১ আসনের বিএনপি দলীয় সাবেক এমপি, বিএনপির কেন্দ্রীয় সাবেক তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক এম. জহির উদ্দিন স্বপনকে রবিবার দুপুরে দু’ঘন্টা অবরুদ্ধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে বিএনপি ও আ’লীগের নেতা-কর্মীরা। এসময় বিক্ষুব্ধরা হামলা চালিয়ে স্বপনের বহনকারী মাইক্রোবাস ভাংচুরসহ ড্রাইভার ও তার অনুসারি কমপক্ষে ১৫ জন নেতা-কর্মীকে মারধর করে আহত করেছে। এছাড়া উপজেলা সদরে পৃথক ভাবে বিক্ষোভ ও ঝাঁড়ু মিছিল করেছে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির হামলাকারী নেতা-কর্মীরা। এসময় বিএনপির সাবেক এমপি স্বপন দু’ঘন্টা অবরুদ্ধ - আ’লীগের বিক্ষোভ ও বিএনপির ঝাড়ু মিছিল - হামলা চালিয়ে গাড়ি ভাংচুর ১৫ নেতা-কর্মী আহত - উত্তেজনাগৌরনদীতেও চরম উত্তেজনা ছড়িয়ে পরে। এখানকার বিএনপির নেতা-কর্মীরা স্বপন বিরোধী মিছিল বের করেন।

জানা গেছে, সদ্য প্রয়াত আগৈলঝাড়া উপজেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক বাচ্চু হাওলাদারের কবর জিয়ারতসহ তার শোর্কাত পরিবারের সদস্যদের শান্তনা দেয়ার জন্য সাবেক এমপি জহির উদ্দিন স্বপন ২০০৮ সনের পরে এই প্রথমবারের মতো রবিবার বেলা সাড়ে এগারটার দিকে আগৈলঝাড়ায় আসেন। এ সংবাদ পেয়ে বিএনপি ও ক্ষমতাসীন আ’লীগের নেতা-কর্মীরা তাকে প্রতিহত করতে উপজেলা সদরের আ’লীগ ও গৈলায় বিএনপি দফায় দফায় বিক্ষোভ ও ঝাঁড়ু মিছিল বের করেন। প্রয়াত বাচ্চুর কবর জিয়ারত শেষে স্বপন সদর বাজারের ব্যবসায়ীদের সাথে কুশল বিনিময় করে ফেরার পথে আ’লীগের তৎকালীন (২০০১ সনের) নির্যাতিত কর্মীরা ধর ধর বলে শ্লোগান দিলে স্বপনকে ধাওয়া করেন। এসময় তার সাথে থাকা নেতা-কর্মীরা দিগ বিদিগ ছোটাছুটি শুরু করে। একপর্যায়ে স্বপনও আত্মরক্ষার্থে দৌঁড়ে আগৈলঝাড়া বাজারের মুদি ব্যবসায়ী ও তার অনুগত সাবেক বিএনপি নেতা অমল বিশ্বাসের দোকানে আশ্রয় নেয়। মিছিল চলাকালীন ও পরবর্তী দু’ঘন্টা স্বপন ওই মুদি দোকানেই অবরুদ্ধ হয়ে পরেন।

এদিকে নির্যাতিত আওয়ামী-ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা ২০০১ সনে সংখ্যালঘু নির্যাতনের দায়ে প্রধান অভিযুক্ত সাবেক এমপি স্বপনের বিচার দাবি করে উপজেলা সদরে দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল করে দলীয় কার্যালয়ের সস্মুখে সভা করেন। ওই সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের আহ্বায়ক ইউসুফ মোল্লা, ছাত্রলীগ নেতা লিটন সেরনিয়াবাত প্রমুখ।

স্বপনের সাথে থাকা তার অনুগত নেতা-কর্মীরা গৌরনদী ফেরার পথে আগৈলঝাড়া বাসষ্ট্যান্ডে পৌঁছলে বিএনপি ও ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের হাতে হামলার স্বীকার হন। হামলায় মাকসুদ মৃধা, শামীম খলিফা, আজিজুল হক সরদার, নাসিরুল হক খলিফা, নাসির খান, খায়রুল খন্দকার, হাফিজুল হাওলাদার, টিপু হাওলাদার, ইমরান সরদার, মনির খলিফাসহ কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়। বিক্ষুব্ধরা স্বপনকে বহনকারী ভাড়ার মাইক্রোবাসটি গৌরনদী ফেরার পথে ব্যাপক ভাংচুর করে। এ সময় গাড়ির ড্রাইভার মনিরকেও মারধর করে আহত করা হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে উপজেলা সদরে অতিরিক্ত পুলিশের মোতায়েন করা হয়।

অপরদিকে বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সোবহানের অনুসারি নেতা-কর্মীরা স্বপনকে প্রতিহত করতে আগে থেকেই গৈলার রথখোলা নামকস্থানে অবস্থান নেয়। স্বপনকে না পেয়ে তারা গৈলায় ঝাড়ু মিছিল করে। দু’ঘন্টা অবরুদ্ধ থাকার পর পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রনে আসলে স্বপনের অনুগতরা তাকে মটরসাইকেলযোগে রাজিহার-রাংতা সড়ক দিয়ে নিরাপদস্থানে নিয়ে যায়।

বিএনপির একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, জহির উদ্দিন স্বপন পূর্নরায় বরিশাল-১ আসন থেকে বিএনপির প্রার্থী হোক এটা বর্তমানের নেতৃত্বদানকারীরা চায়না। তাহলে তাদের কোন অস্থিত্ব থাকবেনা। তাই ওইসব নেতৃত্বদানকারীদের অতিউৎসাহী সমর্থকেরা স্বপনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিলসহ তাকে (স্বপনকে) অবরুদ্ধ করে রেখেছে।    

বরিশাল জেলা উত্তর বিএনপির সভাপতি মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ-এমপি সাংবাদিকদের জানান, জহির উদ্দিন স্বপন বিএনপির কেউ নয়, দলে তার প্রাথমিক সদস্য পদও নেই।

জেলা উত্তর বিএনপির সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমান বলেন, স্বপন দলের কেউ নয়। সে তার কৃতকর্মের জন্য জাতির কাছে সে ধিকৃত।

গৌরনদী উপজেলা বিএনপি সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সোবাহান বলেন, স্বপন বিএনপির কেউ নয়। তার সাথে কারো মতবিরোধ থাকার কারনে তাকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে।

আগৈলঝাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগ আহ্বায়ক ইউসুফ মোল্লা বলেন, রবিবার আওয়ামীলীগের পূর্ব নির্ধারিত মিছিলের তারিখ ধার্য ছিল। ২০০১ সনের নির্যাতনকারী স্বপনকে দেখে নির্যাতিতরা প্রতিবাদ মিছিল করেছে। তাকে আ’লীগের কেউ ধাওয়া কিংবা অবরুদ্ধও করেনি।

জহির উদ্দিন স্বপন বলেন, তিনি পারিবারিক একটি কারনে আগৈলঝাড়ায় এসেছেন, রাজনৈতিক কারণে নয়। অবরুদ্ধ হয়ে প্রশাসনের কাছে সহযোগীতা চেয়েও তিনি তা পাননি বলেও উল্লেখ করেন।

এ ব্যাপারে আগৈলঝাড়া থানার ওসি মোঃ সাজ্জাদ হোসেন বলেন, জহির উদ্দিন স্বপনকে কেউ ধাওয়া করে অবরুদ্ধ করেনি। তাছাড়া তিনি প্রশাসনের কাছে কোন সহযোগীতাও চাননি।

বিএনপির সাবেক এমপি স্বপন দু’ঘন্টা অবরুদ্ধ - আ’লীগের বিক্ষোভ ও বিএনপির ঝাড়ু মিছিল - হামলা চালিয়ে গাড়ি ভাংচুর ১৫ নেতা-কর্মী আহত - উত্তেজনা

আরও পড়ুন

Back to top button
Translate »