আর্কাইভ

প্রকাশ্যেই কেমিক্যাল দিয়ে পাকানো হচ্ছে মৌসুমী রসালো ফল

(কেমিক্যাল) মিশ্রিত করে রসালো মৌসুমী ফল পাকানোর বিষয়টি বরিশালের গৌরনদীতে এখন আর কোন রাখঢাক নেই। এরপূর্বে রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে ফল পাকানোর কাজটি গোপনে করা হলেও এখন প্রকাশ্যেই সে কাজ চলছে।

এলাকাবাসির অভিযোগ, স্থানীয় প্রশাসন এসব দেখেও না দেখার ভ্যান করছে। এ কারনে ক্রমেই বেপরোয়া হয়ে উঠেছে এখানকার অসাধু ফল ব্যবসায়ীরা। সর্বনাশা রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে পাকানো ফল এখন শুধু হাট-বাজারেই নয়, গ্রামের বাড়িতে বাড়িতে ঘুরেও বিক্রি করা হচ্ছে। চিকিৎসকদের ভাষ্যমতে, রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে পাকানো ফল খেয়ে কিডনী, লিভার, পাকস্থলীর ক্যান্সারের মতো নানান জটিল রোগে আক্রান্তের সংখ্যা দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর এসব রোগে শিশুরাই বেশি আক্রান্ত হচ্ছে। ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের গৌরনদী উপজেলা হাসপাতালের (আশোকাঠী) সম্মুখে গড়ে উঠেছে ৮/১০ টি কলার আড়ৎ। ওইসব আড়তে প্রকাশ্যেই কলা পাকানোর জন্য মানব দেহের জন্য ক্ষতিকারক রাসায়নিক পদার্থ মিশ্রিত করে ¯েপ্র করা হচ্ছে। উপজেলার বাটাজোর, টরকী, মাহিলাড়া, সরিকলসহ বিভিন্ন হাট-বাজারে বছরের ১২ মাসেই বিক্রি করা হচ্ছে রাসায়নিক পদার্থ মিস্ত্রিত এসব কলা।

এছাড়াও মৌসুমের শুরুতেই আম, কাঁঠাল, আনারস পাকাতে বিষাক্ত রাসয়নিক পদার্থ মিশ্রন করে ওইসব অসাধু ব্যবসায়ীরা দেদারছে বিক্রি করে আসছে।

গৌরনদীতে দীর্ঘদিন পূর্বে ভেজাল বিরোধী অভিযান পরিচালিত হলেও অজ্ঞাত কারনে রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে ফল পাকানোর অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আজো কোন পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়নি। স্থানীয় আজাহার উদ্দিন, বিশ্বজিত, ইমতিয়াজসহ একাধিক ব্যক্তি বলেন, প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই অসাধু ব্যবসায়ীরা রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে ফল পাকাচ্ছেন।

গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ রবীন্দ্রনাথ গাইন রবিন এ প্রসঙ্গে বলেন, স্বাস্থ্য সুরক্ষায় ফলের গুনাগুন অপরিসীম হলেও রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে পাকানো ফল স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক হুমকি স্বরূপ। এসব ফল খেয়ে মানুষ জটিল রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। গৌরনদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ নুরুল ইসলাম-পিপিএম বলেন, রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে ফল পাকানোর ফলে তিনি ভয়ে ফল খাওয়া ছেড়ে দিয়েছেন। তিনি স্থানীয়দের সাথে একত্বতা ঘোষনা করে আরো বলেন, জরুরি ভাবে রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে ফল পাকানো রোধে কার্যকরী ব্যবস্থা নেয়া উচিৎ। এ ব্যাপারে গৌরনদী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, শ্রীঘই ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে ফল পাকানোরোধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে এ ব্যাপারে তিনি সকলের সহযোগীতা কামনা করেন।

আরও পড়ুন

Back to top button