আর্কাইভ

শিক্ষক নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ বরিশালের গৌরনদী উপজেলার পূর্ব কসবা কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা নিয়োগে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। কমিউনিটি বিদ্যালয়টি অতিসম্প্রতি রেজিষ্টার ভুক্ত হয়েছে। সরকারের সংশ্লিষ্ট কতিপয় কর্মকর্তাদের মোটা অংকের টাকা উৎকোচের বিনিময়ে ওই শিক্ষিকা নিয়োগ বহাল রেখে সরকারি অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অপচেষ্ঠায় লিপ্ত রয়েছেন বলেও স্থানীয়রা অভিযোগ করেন। মঙ্গলবার প্রধান শিক্ষিকার নিয়োগের কাগজপত্র হাতে পাওয়ার পর স্থানীয়দের মাঝে চরম উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে ও স্থানীয়দের অভিযোগে জানা গেছে, পূর্ব কসবা কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি দীর্ঘ দু’বছর বন্ধ থাকার পর চলতি বছরের জুলাই মাস থেকে পূর্ণরায় স্কুলের কার্যক্রম শুরু করা হয়। পূর্বে এ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকার দায়িত্বে ছিলেন জনৈকা মনিরা খানম। বন্ধের পর পূর্ণরায় স্কুলের কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহলের চাপের মুখে প্রধান শিক্ষিকা হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয় রুকসানা ফাহিমাকে। তার নিয়োগে ২০১০ সনের ২৯ ডিসেম্বর উল্লেখ করা হয়। অথচ ওই সময়ে স্কুলটি সম্পূর্ণ রূপে বন্ধ ছিলো। এছাড়াও ওই শিক্ষিকার বয়সের ক্ষেত্রেও রয়েছে নানা জটিলতা।

স্থানীয় শিক্ষানুরাগী হারুন সরদার, রানু বেগম, খোকন ফকিরসহ একাধিক ব্যক্তিরা অভিযোগ করে বলেন, স্কুলটির সকল কার্যক্রম বন্ধের সময় কি করে প্রধান শিক্ষিকাসহ অন্যান্য শিক্ষিকাদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে তা আমাদের বোধগম্য নয়। তারা আরো জানান, অতিসম্প্রতি সরকার বিদ্যালয়টি রেজিষ্টার ভুক্ত করেছে। এ সুযোগে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কতিপয় কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে ওই শিক্ষিকারা পুরনো (ব্যাগডেটের) পত্রিকার মাধ্যমে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে স্ব-স্ব পদে বহাল থাকাসহ সরকারি ভাবে বরাদ্দকৃত পুরো বেতন উত্তোলনের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে।

স্থানীয়রা ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা রুকসানা ফাহিমা, সহকারি শিক্ষিকা ময়না আকতার, হালিমা আকতার ও সারমিন আক্তার বনানীর নিয়োগকে চ্যালেঞ্জ করে তাদের বেতন ভাতা বন্ধসহ সঠিক তদন্তের মাধ্যমে পূর্ণরায় শিক্ষিকা নিয়োগের জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন

Back to top button
Translate »