জাতীয়

ব্রাভো লতিফ সিদ্দিকী: তসলিমা নাসরিন

হজ, তাবলীগ ও প্রধানমন্ত্রী তনয় সজীব ওয়াজেদ জয়কে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করার পর লতিফ সিদ্দিকীর পক্ষে কেউ না দাঁড়ালেও বাংলাদেশ থেকে নির্বাসিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন তাকে সমর্থন দিয়েছেন।

তসলিমা নাসরিন তার ফেসবুক ও টুইটারে এ সংক্রান্ত চরটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। একটিতে লিখেছেন “ব্রাভো লতিফ সিদ্দিকী!” তিনি লতিফ সিদ্দিকীকে অভিনন্দন জানানোর পাশাপাশি সরকারের সমালোচনাও করেন।

অপর এক স্ট্যাটাসে তসলিমা লিখেছেন, এতদিনে বাংলাদেশের কোন মন্ত্রীর মুখে কিছু সত্যভাষণ শুনলাম। আরও মন্ত্রী যেন শেখেন সত্য কথা বলা। এতকাল তো মন্ত্রীকুলের মুখে মিথ্যেই শুনেছি, মিথ্যে প্রতিশ্রুতি শুনেছি, ধর্মের মিথ্যে স্তুতি শুনেছি। এবার সত্য কিছু কথা শুনে প্রাণ জুড়োলো।

তৃতীয় স্ট্যাটাসে লিখেছেন, বাংলাদেশ আবার প্রমাণ করলো এ কোনও গণতান্ত্রিক দেশ নয়। কোনও সভ্য দেশ নয় এই দেশ। এই দেশ পৃথিবীর অন্যতম বর্বর দেশ। প্রমাণ করলো এই দেশ ইসলামী সন্ত্রাসীদের দেশ। কিছু সত্য কথা বলেছেন বলে আবদুল লতিফ সিদ্দিকীকে মন্ত্রী পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। দেশের লক্ষ লক্ষ অশিক্ষিত ধর্মান্ধ বর্বর তাঁকে দেশে ঢুকতে দেবে না বলে চিৎকার করছে। সরকারী দল আর বিরোধী দলের মধ্যে কে কত বেশি ধর্মান্ধ বর্বর, তার প্রতিযোগিতা চলে। লতিফ সিদ্দিকীকে অপসারণ করে ধর্মান্ধ সরকার বুঝিয়ে দিতে চাইছে, তারাও দেশের অশিক্ষিত ইসলামী সন্ত্রাসীদের মতো অশিক্ষিত, তারাও তাদের মতো ধর্মান্ধ, তারাও বর্বর, তারাও কোনও ভিন্ন মতকে বরদাস্ত করে না, তারাও সত্যিকার গণতন্ত্রে এবং মুক্তচিন্তায় বিশ্বাস করে না। ধর্মান্ধ বর্বরদের দেশটায় আমার জন্ম হয়েছিল, ভাবতেই লজ্জা হয় আমার।

চতূর্থ স্ট্যাটাসে বাংলাদেশকে মুসলিম মৌলবাদী দেশ উল্লেখ করে তসলিমা ইসলাম ধর্মের প্রচণ্ড সমালোচনা করেছেন। ধর্মীয় অনুভূতির কথা বিবেচনায় রেখে শেষ স্ট্যাটাসটা প্রকাশ করা গেল না।

সৌজন্যে : প্রিয়.কম


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

Tags

আরো পোষ্ট...