বরিশাল

ভাণ্ডারিয়ায় মামা বাড়িতে নচিকেতা

কলকাতার প্রখ্যাত সঙ্গীত শিল্পী নচিকেতা চক্রবর্তী ঘুরে গেলেন পূর্ব পুরুষের স্মৃতিধন্য পিরোজপুরের মামা বাড়ি ভাণ্ডারিয়া আর ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ার নিভৃত গ্রাম চেচরি।

ঢাকায় গাইতে আসা নচিকেতা সোমবার হেলিকপ্টারে চড়ে পিরোজপুর জেলার ভাণ্ডারিয়া বিহারী মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে নামেন মধ্য দুপুরে।

এই বিদ্যালয়ে তাঁর দাদু (নানা) ললিত কুমার গাঙ্গুলী দেশ বিভাগের আগে প্রধান শিক্ষক ছিলেন। আর লেখাপড়া করেছেন বাবা সভারঞ্জন চক্রবর্তী ও মা লতিকা চক্রবর্তী।

 

গুলশান অল কমিউনিটি ক্লাবের অতিথি হয়ে গত কয়েকদিন ঢাকায় একাধিক অনুষ্ঠানে ব্যস্ত ছিলেন নচিকেতা। অনেকদিনের ইচ্ছে ছিল নিজেদের বাড়ি-ঘর বরিশালের অজপাড়াগায়ে ঘুরে দেখার।

কলকাতা ফিরে যাওয়ার আগে তাঁর এ ইচ্ছে এবার সফল হলো পূর্ব পুরুষের আবাস ভাণ্ডারিয়া ও চেচরি গ্রামে মাটির টানে খানিকটা সময় কাটানোর মধ্যদিয়ে।

মা-বাবা, ঠাকুর দাদা-দাদু, মামা-জ্যাঠাদের স্মৃতি জড়ানো গ্রাম দেখতে তাঁর ছুটে আসার চেষ্টা সার্থক হল।

 

দুপুর দেড়টায় হেলিকপ্টার থেকে নেমেই তিনি প্রথমে যান দাদুর স্কুল দেখতে। এখানে ভাণ্ডারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান আতিকুল ইসলাম তালুকদার উজ্জ্বল ও থানার ওসি মতিউর রহমানসহ স্কুলের শিক্ষক-ছাত্র-ছাত্রীরা তাঁকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান। তাঁর হাতে তুলে দেয়া হয় স্কুলের শতবর্ষ স্মরণিকা। এরপর ‘নিজ ভাণ্ডারিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে ছোট ছোট শিক্ষার্থীদের সাথে কিছুক্ষণ অন্তরঙ্গ সময় কাটান।

এ সময় ভাণ্ডারিয়ার ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম সরোয়ার জোমাদ্দার তাঁকে স্বাগত জানান। এক ফাঁকে ভাণ্ডারিয়ার সংসদ সদস্য,  পরিবেশ ও বন মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর সাথে মোবাইল ফোনে কথাও বলেন তিনি।

 

সেখান থেকে ছুটে যান মামা বাড়ি পাশের কাঁঠালিয়া উপজেলার চেচরি গ্রামে। সেখানে তিনি পৌঁছলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ফারুক হোসেনসহ গ্রামের বাসিন্দারা তাঁকে অভ্যর্থনা জানান। নচিকেতা মা-মামাদের জন্মভূমিতে পা রেখে ভাবাবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন।

 

বিকাল সাড়ে তিনটার পরে হেলিকপ্টারেই আবার ভাণ্ডারিয়া থেকে ঢাকা ফিরে যাওয়ার আগে স্থানীয় থানা পার্কে পথ নাটকের দর্শক-স্রোতাদের উদ্দেশে তাঁর বিখ্যাত গান বৃদ্ধাশ্রমের প্রথম চার লাইন গেয়ে শোনান নচিকেতা।

 

তবে সময়ের অভাবে বাবার বাড়ি ঝালকাঠির রাজাপুরে যেতে পারেননি এই শিল্পী।

সৌজন্যে : দৈনিক ইত্তেফাক


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...

Leave a Reply