গৌরনদী সংবাদ

সম্পত্তি দখলের উদ্দেশ্যে ২ শতাধিক নিরীহ লোকের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ নেতার মামলা

বরিশালের গৌরনদী পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ এর সহ-সভাপতি মোশাররফ হাওলাদার টরকীর চর মহল্লার হাজী আবুল হোসেন নামের এক ব্যবসায়ী ও তার পরিবার সহ ওই এলাকার ২ শতাধিক নিরীহ এলাকাবাসীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সম্পত্তি দখলের জন্য ওই এলাকার ভূমিদস্যু ও আওয়ামী লীগ নেতা মোশাররফ হাওলাদার আবুল হোসেনের পরিবারের সদস্যদের একের পর এক মিথ্যা মামলায় জড়ানোসহ এলাকার শতাধীক নিরীহ লোকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে নানাভাবে হয়রানী করছেন। মোশাররফ  তার ক্যাডার বাহিনীর কবল থেকে রেহাই পেতে ব্যবসায়ী আবুল হোসেনসহ নিরীহ এলাকাবাসী স্থানীয় সংসদ সদস্য ও  প্রশাসনের সহযোগীতা কামনা করেছেন।

গতকাল শনিবার বিকেলে গৌরনদী প্রেস ক্লাবে উপস্থিত হয়ে ব্যবসায়ী আবুল হোসেন জানান, উপজেলার টরকীর চর এলাকার ৫০ শতক জমির তিনি ক্রয় সূত্রে মালিক। ২৪ বছর আগে তিনি ওই জমির ওপর পাকা দালান তৈরী করে পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন। ২০০৭ সালে তিনি বাকী অংশের ওপর একটি টিনসেট দালান তৈরী করে পাশ্ববর্তি মামুন রাঢ়ীর স্ত্রী নার্গিস আকতার ও জনৈক খলিলুর রহমানের কাছে ভাড়া দেন। তারা ২ জন মিলে সেখানে একটি কিন্ডার গার্টেন স্কুল চালু করেন। পরবর্তিতে ওই কিন্ডার গার্টেনের পাটনার হিসেবে গৌরনদী পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের সহ-সভাপতি মোশাররফ হাওলাদারের স্ত্রী সুলতানা রাজিয়া লাভলীকে নেয়া হয়। ৬ মাস আগে প্রধান শিক্ষক নার্গিস ও মোশাররফের স্ত্রীর মধ্যে মতানৈক্য দেখা দেয় এবং মারামারির ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিয়ে গৌরনদীর পৌর মেয়র মোঃ হারিছুর রহমান শালিশ মিমাংশা করে দেন। ওই সময় অংশীদাররা কিন্ডার গার্টেনের ব্যবসা বন্ধ করতে সম্মত হন। ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর তাদের ভাড়া চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়। ওইদিন (৩১ ডিসেম্বর) সকালে প্রধান শিক্ষক নার্গিস আক্তার স্বেচ্ছায় কিন্ডার গার্টেনে রতি তার যাবতীয় মালামাল তার নিজস্ব লোকজন দিয়ে অন্যত্র সরিয়ে নেন। জানাগেছে, আওয়ামী লীগ নেতা মোশাররফ হোসেন ওই সম্পত্তির মালিকানা দাবী করে তার দলবল নিয়ে একই দিন দুপুরের দিকে সম্পত্তির  মালিক আবুল হোসেন ও তার পরিবারের ওপর হামলা চালিয়ে তাদেরকে আহত করেন। তারা আবুল হোসেনের পাকা ওয়ালের কিছূ অংশ ভেঙ্গে ফেলেন। এতেও ক্ষ ান্ত হয়নি মোশাররফ ও তার বাহিনীর লোকজন। পরের দিন মোশাররফ নিজে বাদী হয়ে বরিশাল সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আবুল হোসেন ও তার পুত্র মোঃ জাফর ইকবাল, জানেআলম ও স্ত্রী নুরজাহান বেগম সহ এলাকার ২ শতাধিক নিরীহ লোকজনের বিরুদ্ধে হয়রানীর উদ্দেশ্যে চাঁদাবাজি সহ নানা মিথ্যা অভিযোগ এনে একটি মামলা দায়ের করেন। বর্তমানে তিনি তার সন্ত্রাসী বাহিনীদের নিয়ে ওই বাড়ীটি দখলের চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছেন এবং আবুল হোসেনের পরিবারের সদস্যদের প্রান নাশের হুমকি প্রদান করছেণ। মোশাররফ ও তার বাহিনীর বিরুদ্ধে কথা বলার সাহস পাচ্ছেনা কেউ। ফলে মামলা-হামলার ভয়ে আতংকে রয়েছেন ব্যবসায়ী আবুল হোসেনের পরিবারসহ নিরীহ এলাকাবাসী।

মোঃ জামাল উদ্দিন


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...

Leave a Reply