গৌরনদী সংবাদ

মেধাবী ছাত্রী জান্নাতুল ফেরদাউসের উচ্চ শিক্ষা অনিশ্চিত

অভাবের সংসারে অর্থাভাবে দিনমজুর পিতাকে চিকিৎসা করাতে না পারায় সে এখন মৃত্যুর পথযাত্রী। তার পিতার মতো যেন আর কাউকে অর্থাভাবে বিনাচিকিৎসায় থাকতে না হয়, সেজন্য উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে আপামর জনসাধারণের স্বাস্থ্যসেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখতে চান জান্নাতুল ফেরদাউস। মায়ের সামান্য উপার্জিত অর্থে এবারের এইচএসসি পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগে সে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বর্তমানে অর্থাভাবে মেধাবী জান্নাতুল ফেরদাউসের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া অনিশ্চিত হয়ে পরেছে। এ কারনে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে তার ডাক্তার হওয়ার স্বপ্নও ভেস্তে যেতে বসেছে।

বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার পশ্চিম সুজনকাঠী গ্রামের আক্তার হোসেন মোল্লার কন্যা জান্নাতুল ফেরদাউস। সে আগৈলঝাড়া উপজেলা সদরের এস.এম বালিকা বিদ্যালয় থেকে ২০১২ সালের এসএসসি পরীক্ষায়ও জিপিএ-৫ পেয়েছিলো।

মা বিউটি বেগম জানান, তার স্বামী উপজেলা সদরে সবজি ও কাঁচামাল বিক্রি করে কোনো মতে সংসার চালাতেন। তার স্বপ্ন ছিলো দু’ছেলে-মেয়েকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করার। গত কয়েক বছর থেকে তিনি দুরারোগ্যব্যধিতে আক্রান্ত হয়ে বর্তমানে অর্থাভাবে বিনাচিকিৎসায় শষ্যাশয়ী রয়েছেন।

তিনি আরো জানান, স্বামীর স্বপ্ন পূরণের চেষ্টায় তিনি দিনমজুরের কাজ করে সংসার খরচসহ সন্তানদের লেখাপড়া চালিয়ে নিয়েছেন। ফলশ্রুতিতে তার কন্যা জান্নাতুল ফেরদাউস এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ এবং চলতি এইচএসসি পরীক্ষায় ঢাকার আদমজী ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়ে কৃতিত্ব অর্জণ করেছে।

কান্নাজড়িত কন্ঠে বিউটি বেগম বলেন, প্রধানমন্ত্রী ও সমাজের মহানুভব সমাজপতিদের সহযোগীতা পেলেই তার মেয়ে জান্নাতুল ফেরদাউস ভালো কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পর উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে চিকিৎসক হতে পারবে। নতুবা এখানেই একটি স্বপ্নের সমাপ্তি ঘটাতে হবে।

// খোকন আহম্মেদ হীরা //


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...