গৌরনদী সংবাদ

মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত আসনের প্রার্থীর প্রচারনায় জমে উঠেছে ভোট যুদ্ব

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ প্রচন্ড শীতকে উপেক্ষা করে গৌরনদী পৌসভা নির্বাচনে প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন প্রার্থীরা। প্রার্থীদের পদচারনায় মুখরিত হয়ে উঠেছে পল্লীর জনপদ। এখানে মেয়র পদে ৪ সাধারন কাউন্সিলর পদে ৩০ ও সংরক্ষিত মহিলা আসনে ১০জন প্রার্থী দিন রাত ভোটারের বাড়ি বাড়ি গিয়ে নানান প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট যাচ্ছেন। ভোটাররাও প্রার্থীদের কাছ থেকে আদায় করে নিচ্ছেন তাদের চাওয়া পাওয়ার ওয়াদা জমে উঠেছে গৌরনদীর ভোট যুদ্ধ।

জানা গেছে, ১৯৯৬ সালের ২৬ ডিসেম্বর বরিশালের সদর উত্তর জেলার গৌরনদী উপজেলার নিয়ে গৌরনদী পৌরসভা গঠিত হয়। ১৯৯৮ সালে এ পৌরসভা দ্বিতীয় ও ২০০৬ সালে প্রথম শ্রেণীতে উন্নীত করা হয়। ১১দশমিক ৫০ বর্গ কিলোমিটা আয়তনের এই পৌর সভায় ভোটার সংখ্যা ২৭হাজার ২শত ৯৮। পৌরসভা হওয়ার পর গত ১৯ বছর প্রশাসকসহ বড় দুই দলের তিন জন নির্বাচিত পৌর চেয়ারম্যান ও মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। গৌরনদী পৌরসভায় এবারে তৃতীয় বারের মত নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

এলাকাবাসী জানান, গৌরনদী পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা জোড়ে শোরে গন সংযোগে নেমে পড়েছেন। দলীয় নেতা কর্মী ও সমর্থকদের সঙ্গে নিয়ে তারা ছুটে চলছেন এক মহল্লা থেকে আরেক মহল্লায়। মেয়র পদে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে প্রার্থী হয়েছেন গৌরনদী উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মো. হারিসুর রহমান । তিনি জানান, সময় খুবই কম, নির্বাচনের সময় যত ঘনিয়ে আসছে প্রচারনার কাজে ততই কাজ ব্যবস্থতা বেড়ে যাচ্ছে। প্রতিটি ভোটার দ্বারে দ্বারে পৌছতে দিন রাত কাজ করতে হচ্ছে। গতকাল কসবা এলাকায় গিয়ে দেখা যাচ্ছে তিনি প্রচারনা চালাচ্ছেন। এসময় তার প্রতিশ্রতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, পৌরবাসীর প্রধান সমস্যা নালা না থাকা। ফলে জলাবদ্ধতায় মানুষকে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়। আমি দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হতে পারলে নালা নির্মানই হবে আমার প্রথম ও প্রধান কাজ।

প্রধান বিরোধীদল বিএনপির মেয়র পদে দলীয় প্রার্থী হয়েছেন উপজেলা যুবদলের সভাপতি মো. সফিকুর রহমান। তিনি জানান, প্রজ- শীতের মধ্যে নেতা কর্মিদের সঙ্গে নিয়ে দিন রাত প্রচারনা চালাচ্ছেন। একই দিনে টরকী এলাকায় প্রচারনা চালানোর সময় তার কাছে নির্বাচনী প্রতিশ্রতি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পূর্বে যারা নির্বাচিত হয়েছে তারা পৌরবাসীর সাথে ওয়াদা ভঙ্গ করেছে। পৌরবাসীর উন্নয়নে কোন কাজ করেনি। আমি নির্বাচিত হতে পারলে নালা নির্মান ও বিশুদ্ধ খাবার পানি সরবারহ নিশ্চিতসহ মডেল পৌরসভায় রুপান্তরিত করবো।

ন্যাশনাল পিপলস পার্টি থেকে মেয়র পদে প্রার্থী হয়েছেন সাংবাদিক তৌহিদী মাহমুদ তুহিন। তিনি জানান, নির্বাচিত হতে পারলে গৌরনদী পৌরসভাকে ডিজিটাল পৌরসভা গড়ে তুলবো। নাগরিক সুবিধা অসুবিধার শোনার জন্য আলাদা টিম গঠন করে তার প্রতিকার করার চেষ্টা করবো।

পৌসভার সুন্দরদী, গেরাকুল, আশোকাঠী, শাওড়া, বড়বাড়ি, গয়নাঘাট, টিখাসার, দিয়াসুর, সহ বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, সরগরম হয়ে উঠেছে হাট বাজার ও চায়ের দোকান। চলছে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রচারনামূলক তৎপরতা। পাশাপাশি চায়ের আড্ডায় প্রার্থীদের ভাল মন্দ নিয়ে সরগরম হয়ে চায়ের দোকান। ৯টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থীরা ভোট যুদ্ধে মাঠ দাবড়িয়ে বেড়াচ্ছেন ১নং ওয়ার্ড বর্তমান কাউন্সিলর প্রার্থী বুলবুল দেওয়ান জানান, আমার ওয়ার্ডের ভোটাররা অনেক সচেতন তাদের বাড়িতে বাড়িতে যাওয়ার সুযোগে তারা আদায় করে নিচ্ছে প্রতিশ্রুতি। প্রচারনা চালানোর সময় ২ নং ওয়ার্ড বর্তমান কাউন্সিলর প্রার্থী মোঃ আহসান ইমাম খাইরুল খান বলেন, ব্যবসায়ীদের নিরাপত্তা দেওয়াই হবে আমার প্রধান কাজ। চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে আমি কাজ করবো। ৪ নং ওয়ার্ড বর্তমান কাউন্সিলর প্রার্থী মোঃ নুর আলম সিকদার জানান, তিনি শ্রমিকদের স্বার্থ রক্ষা ও পূর্নবাসনে কাজ করবেন। ৭ নং ওয়ার্ড বর্তমান কাউন্সিলর ও ও প্রার্থী এস,এম, ফিরোজ রহমান বলেন, আমি নির্বাচিত হতে পারলে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করবো এবং দুঃস্তদের জন্য কাজ করবো। এমনিভাবে প্রত্যেক প্রার্থীই ভোটারদের আকৃষ্ট করতে নানান প্রতিশ্রুতির কথা বলে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেনে। তালেব আলী হাওলাদার(৭০), আরিফ হোসেন(৫৫) বিপ্লব তালুকদার(২৮)সহ অনেক ভোটার বলেন, মুখে প্রতিশ্রুতির যতই ফুল ঝুড়ি ফুটুক না কেন আমরা যোগ্য প্রার্থীকেই ভোট দিবো।

আরও সংবাদ...

Leave a Reply

Back to top button