গৌরনদী সংবাদ

গৌরনদীতে নির্বাচনী অফিস ভাংচুর, ধানের শীষের প্রার্থী লাঞ্ছিত, আহত ৮

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার নলচিড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী নৌকা মার্কার সমর্থকরা শনিবার সকালে নলচিড়া বাজারে হামলা চালিয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থীর নির্বাচনী কার্যালয় ব্যাপক ভাঙচুর করেছে। এসময় ৫ জনকে মারধর আহত করেছে। একই ইউনিয়নের বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থীকেও লাঞ্ছিত করেছে। বাটাজোর ইউনিয়নের বিএনপির প্রার্থীকে পোষ্টার লাগাতে বাধা প্রদানসহ দুই জনকে জখম করেছে নৌকা প্রতীকের সমর্থকরা।

নলচিড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মীর মাসুদ উদ্দিন জানান, শনিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান গোলাম হাফিজ মৃধার প্রায় শতাধিক সমর্থক যুবলীগ-ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ৩০/৩৫ টি মটরসাইকেযোগে লাঠিসোটা নিয়ে মহড়া দিয়ে নলচিড়া বাজারে প্রবেশ করেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, নৌকা মার্কার সমর্থকরা আমার নির্বাচনী কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে চেয়ার, টেবিলসহ ব্যাপক ভাঙচুর করেছে এবং অফিসে থাকা আমার সমর্থক রিয়াদ শরীফ (২৫), আক্কাস শিকদার(২২) নুর আলম (২০)সহ ৫জনকে মারধর করে অফিস থেকে বের করে দেন। আমাকে মারার জন্য খুঁজতে থাকেন।

একই ইউনিয়নের বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রতীকের প্রার্থী মির্জা সেকেন্দার আলম জানান, সকাল সাড়ে ১১টার দিকে তার সমর্থকরা পোষ্টার নিয়ে কয়ারিয়া এলাকায় যান। এসময় মটর সাইকেলের মহড়া নিয়ে নৌকা প্রতীকের সমর্থকরা তার কর্মীদের ধাওয়া করে পোষ্টার ছিনিয়ে নেন এবং লাগানো পোষ্টার ছিঁড়ে ফেলে। এলাকার লোকজন জানান, পোষ্টার ছিনিয়ে নেয়ার খবর পেয়ে বিএনপির প্রার্থী মির্জা সেকেন্দার আলম ঘটনাস্থলে পৌছলে তাকেও লাঞ্ছিত করা হয়।

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে নৌকা মার্কার প্রার্থী গোলাম হাফিজ মৃধা বলেন, হামলার অভিযোগ সঠিক নয়, রাজনৈতিক সুবিধা নিতে মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে।

বাটাজোর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ও বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের চেয়ারম্যান প্রার্থী আকতার হোসেন বাবুল জানান, তার সমর্থক আ. জলিল মিয়া (৩০) পোষ্টার নিয়ে বাটাজোর পুলিশ ক্যাম্পের পিছনে হরহর এলাকায় পৌছলে নৌকা মার্কার প্রতীকের প্রার্থী আ. রবের পুত্র রুবেল হাওলাদার (২৫)র নেতৃত্বে কয়েকজন সমর্থক হামলা চালিয়ে কর্মী আ. জলিল (৩০) কে মারধর করে পোষ্টার ছিনিয়ে নেন এবং লাগানো পোষ্টার ছিঁড়ে পানিতে ফেলে দেন। হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন রুবেল হাওলাদার। একই দিন বাটাজোর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শাহজাহান সরদার(৫০) কে মারধর করে নৌকা প্রতীকের সমর্থকরা। বাটাজোর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুর রব হাওলাদার হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, হামলায় আমার কোন সমর্থক জড়িত না।

গৌরনদী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলাউদ্দিন মিলন জানান, কোন অভিযোগ পাইনি পেলে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...

Leave a Reply