গৌরনদী সংবাদ

মাটির টানে পৈত্রিক ভিটা ঘুরে গেলেন কলিকাতা’র হাইকোর্টের বিচারপতি সুব্রত তালুকদার

মোঃ গিয়াস উদ্দিন মিয়াঃ ‘বাংলাদেশের মাটিতে ঠাকুর দাদা ও ঠাকুর মা’র গন্ধ পাচ্ছি। আমাদের পৈত্রিক ভিটায় এত দিন পরে আসতে পেরে ঠাকুর মা’র মুখে এ বাড়ির ইতিহাস ঐতিহ্য’র গল্প শুনেছি অনেক, যা আজ স্ব-চোখে দেখলাম ও অনুভব করলাম। আমার বাবা ছোট বেলা এ বাড়িতেই ছিল। দিসইচএ লাইফ টাইম মুমেন্ট। তিন পুরুষ এক সাথে আসতে পেরেছি এটাও লাইফ টাইম, কলতকায় বসবাস করেও আমার মনে হত ধুরিয়াল আমার বাসা।’

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার ২ নং বার্থী ইউনিয়নের প্রত্যান্ত অঞ্চল ধুলিয়াল গ্রামে বুধবার দুপুরে পৈত্রিক ভিটায় বসে আবেগীত হয়ে কথা গুলো বললেন, কলিকাতা’র হাইকোটের বিচারপতি সুব্রত তালুকদার।


জানা গেছে, ধুলিয়াল গ্রামের স্বর্গীয় হাড়ান চন্দ্র তালুকদার তৎকালিন ওই এলাকার জমিদার ছিলেন। তার মৃত্যুর পর তার পুত্র সুবধ চন্দ্র তালুকার ১৯৫০ সালে চাঁদশী ঈশ্বর চন্দ্র মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে ইংরেজীতে প্রথম স্থান অধিকার করে ভারতের কলকাতায় পারি জমান।


বিচারপতি সুব্রত তালুকদার জন্মের পর এই প্রথম তার পৈত্রিক ভিটায় আসলেন। তিনি দিন ভর বাড়ির পুরাতন বিল্ডিংএর প্রতিটি তলার বিভিন্ন কক্ষসহ বাড়ির আশ পাশ ঘুরে দেখেন। এলাকাবাসীর সাথে কুশল বিনিময় করেন। বিচারপতি সুব্রত তালুকদারের সাথে ছিলেন পিতা অবসরপ্রাপ্ত ইন্ডিয়ান পুলিশ সার্ভিসের অফিসার সতেন্দ্র প্রষাদ তালুকদার, মা অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষিকা কল্পনা তালুকদার ও ছেলে কলেজ পড়ুয়া সচীত তালুকদার।

সতেন্দ্র প্রষাদ তালুকদার বলেন, ‘দীর্ঘ দিন পরে হলেও ছোট বেলার স্মৃতি জড়িত বাড়িতে আসতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি।’


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...