জাতীয়

নিরাপত্তা পরিষদে জাপানের সমর্থনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার

জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে অস্থায়ী সদস্য পদে জাপানকে সমর্থন জানিয়ে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিয়েছে বাংলাদেশ।

জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবে ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দ্বিপাক্ষিক বৈঠক শেষে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষনা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সংবাদ সম্মেলন শেষে হাসিনা জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবের হাতে উপহার হিসাবে দুটি রয়েল বেঙ্গল টাইগারের ছবিযুক্ত অ্যালবাম তুলে দেন। এ জন্য জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও জনগণকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান। পাশাপাশি জাপানের প্রধানমন্ত্রীও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর হাতে এ সময় সেদেশের বিশেষ মুদ্রা উপহার-স্মারক হিসাবে তুলে দেন, যে মুদ্রায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি রয়েছে।

শনিবার বিকাল ৪টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে দুই নেতার মধ্যে এ বৈঠক শুরু হয়। গণভবনের শিমুল কনফারেন্স হলে প্রথমে দুই নেতার একান্ত বৈঠক হয়। পরে শুরু হয় দ্বিপাক্ষিক বৈঠক। এই বৈঠক শেষে বিকাল পৌনে ৬টার দিকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের চামেলি কনফারেন্স হলে বাংলাদেশ ও জাপানের প্রধানমন্ত্রী যৌথ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হন।

বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, পানিসম্পদমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, রেলমন্ত্রী মজিবুল হকসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত আছেন। পাশাপাশি জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে’র সঙ্গে দেশটির সফররত উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ভবিষ্যতে বাংলাদেশ এবং জাপানের মধ্যকার সম্পর্ক হবে আরো বন্ধুত্বপূর্ন এবং এই দুদেশের অর্থনৈতিক সম্পর্ক আরো জোরদার হবে বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ।

শনিবার সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে সফররত জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবে সন্ধ্যা ৬টা ২৫ মিনিটে বঙ্গভবনে যান। সেখানে প্রায় ২০ মিনিট অবস্থান করেন তিনি। বৈঠক শেষে রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বিষয়টি অবহিত করেন।

জাপ‍ানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবের প্রতি উদ্দেশ্য করে রাষ্ট্রপতি বলেন, জাপান বাংলাদেশকে যে ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে দেশের মানুষ তাতে খুশি হয়েছে।

স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশকে দেওয়া অকুণ্ঠ সমর্থন ও সহযোগিতার কথা স্মরণ করে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বলেন, স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমন জাপান সফর করেন। এর পর থেকে যুদ্ধ বিধ্বস্ত বাংলাদেশ পুনঃগঠনে সহায়তা শুরু করে জাপান।

জাপান প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবে বলেন, বাংল‍াদেশ একটি সম্ভাবনাময় রাষ্ট্র। জাপান-বাংলাদেশের মধ্যে নিবিড় অশীদারিত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে। ভবিষ্যতে তা আরো জোরদার হবে। সফর সঙ্গী ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দলের কথা রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করে জাপানি প্রধানমন্ত্রী বলেন, এসব ব্যবসায়ী বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া রয়েল বেঙ্গল টাইগার দেখার জন্য জাপানিরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে বলেও তিনি জানান।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...