বরিশাল

আ. লীগের মোয়াজ্জেম ও বিএনপির সজলকে প্রার্থী চায় তৃণমূল

বরিশাল-১ ও ২ আসন

জননেত্রী শেখ হাসিনা পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও বরিশাল বিভাগ উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি ক্যাপ্টেন এম মোয়াজ্জেম হোসেন। ১৯৭০ সালে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে থাকা আওয়ামী লীগ দিয়ে রাজনীতিতে তাঁর পদার্পণ। বঙ্গবন্ধুর সৈনিক হিসেবে নৌকার মিছিলে রাজপথে থাকতেন। দলের সুসময়ে সুবিধাভোগীদের আগমন আর দুঃসময়ে প্রস্থান ঘটলেও অটুট ছিলেন মোয়াজ্জেম।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আর্তমানবতার সেবাসহ জনসংযোগ, পথসভা ও প্রচারে এগিয়ে মোয়াজ্জেম। নিরলস পরিশ্রমের কারণে তৃণমূল নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয়। তিনি শিশু-কিশোর শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষাসামগ্রী বিতরণ, শীত ও বন্যায় গরিব-অসহায় মানুষকে সাহায্য, বিনা মূল্যে চিকিৎসাসেবা, ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প স্থাপন, অসচ্ছল ও মেধাবীদের বৃত্তি প্রদান, মসজিদ, মাদরাসা, এতিমখানা ও সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে অনুদান দেওয়াসহ স্কুল-কলেজের উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন। তিনি বরিশাল-২ আসনের (বানারীপাড়া-উজিরপুর) আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের পাশে থেকে সার্বিক সহযোগিতা করছেন। তাই সংসদ নির্বাচনে এ আসনে তারা তাঁকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে দেখতে চায়। মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ‘১৯৭০ সাল থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত থেকে প্রতিটি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীকে বিজয়ের জন্য মাঠে থেকেছি। এবার আমি দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছি। আশা রাখি জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকেই দলীয় মনোনয়ন দেবেন। বরিশাল-২ আসন তাঁকে উপহার দিতে পারব।’

গাজী কামরুল ইসলাম সজল

অ্যাডভোকেট গাজী কামরুল ইসলাম সজল বরিশাল উত্তর জেলা বিএনপির সহসভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য। দলীয় নেতাকর্মীরা জানায়, তৃণমূলের সঙ্গে সজলের নিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে হামলা-মামলার শিকার নেতাকর্মীদের আশ্রয়স্থল তিনি। নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলায় তিনি বিনা পয়সায় উচ্চ আদালত থেকে জামিন করাচ্ছেন। হামলার শিকার হয়ে এলাকাছাড়াদের পরিবারকেও সহায়তা করেন তিনি। তাই বরিশাল-১ আসনে নির্যাতিত নেতাকর্মীরা বিএনপিদলীয় প্রার্থী হিসেবে তাঁকেই দেখতে চায়। এ আসন থেকে আরো তিনজন বিএনপিদলীয় মনোনয়ন চাচ্ছেন। তবে তাঁদের মধ্যে সজল ব্যতিক্রম। তাঁকে প্রার্থী করা হলে নেতাকর্মীরা ধানের শীষের পক্ষে কাজ করতে পারবে। কামরুল ইসলাম সজল বলেন, ‘এমন বিবেচনায় এই আসনে আমি দলীয় মনোনয়ন পেতে আশাবাদী।’


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

Source
কালের কন্ঠ

আরো পোষ্ট...